সিবিএন ডেস্ক:
অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির ও আল-জামিআতুল দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ্ আহমদ শফীকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকা নেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়ার ধূপখোলা মাঠের পাশে অবস্থিত আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান হেফাজত আমিরের ছেলে ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রচার সম্পাদক মাওলানা আনাস মাদানী।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, আল্লামা শফীর শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে অনেক ভালো। তবে ওনার শারীরিক চেকআপ ও উন্নত চিকিৎসা করার প্রয়োজন। তাই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের পরামর্শে দুপুর ১টা ৫ মিনিটের দিকে তাকে একটি বেসরকারি সংস্থার এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় নিয়ে আসা হয় এবং হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১১ এপ্রিল (শনিবার) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বমি, মাথাব্যথা, শ্বাসকষ্ট এবং বার্ধক্যজনিত শারীরিক দুর্বলতাসহ নানা সমস্যা নিয়ে আল্লামা আহমদ শফীকে চট্টগ্রামের প্রবর্তক মোড়ের সিএসসিআর নামে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সেখানে তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের হৃদরোগ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ ইব্রাহিম চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

আল্লামা আহমদ শফীকে চট্টগ্রামের সিএসসিআর হাসপাতালে ভর্তির একদিন পর গত রোববার (১২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে মাওলানা আনাস মাদানীর পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি বলা হয়, হেফাজত আমির আগের চেয়ে অনেকটা সুস্থতা অনুভব করছেন। এছাড়া চিকিৎসকের বরাত দিয়ে আরও জানিয়েছিলেন, তার স্যালাইন চলছে, রাইস টিউব দিয়ে খাবার দেয়া হচ্ছিল। তিনি এখন স্বাভাবিক আছেন এবং তার শারীরিক অবস্থা এখন উন্নতির দিকে। তাছাড়া আল্লামা আহমদ শফীর শারীরিক সুস্থতায় জন্য দেশবাসীর কাছে তিনি দোয়াও চেয়েছিলেন।

এদিকে গতকাল সোমবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরের পর থেকে একটি কুচক্রীমহল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আল্লামা আহমদ শফীর মৃত্যুর গুজব প্রচার করে। পরে এটা খুবই দুঃখজনক এমনটা দাবি করে চট্টগ্রামের সিএসসিআর হাসপাতাল থেকে প্রেরিত বিবৃতি ও ফেসবুক লাইভে এসে তার মৃত্যুর বিষয়টি সঠিক নয় বলে দেশবাসীকে নিশ্চিত করেন এবং গুজবে কান না দেয়ারও আহ্বান জানার হেফাজত আমিরের পুত্র।

এছাড়া আরও গুজব রটানো হয়েছিল আল্লামা আহমদ শফীর শরীরে করোনাভাইরাস পজেটিভ। কিন্তু ওইদিন (সোমবার) রক্তের নমুনা পরীক্ষার (কোভিড-১৯) পর করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়নি আহমদ শফীর- এমনটা এ প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেন হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আবু সৈয়দ মো. ইমতিয়াজ হোসাইন।

১০৩ বছরের অধিক বয়সী আল্লামা আহমদ শফী চলতি বছরের আগেও কয়েক দফা অসুস্থ হয়ে ওই হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছিলেন। দীর্ঘদিন যাবৎ বার্ধক্যজনিত দুর্বলতার পাশাপাশি ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, শ্বাসকষ্টে এবং হজমজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন। বার্ধক্যের কারণে এসব রোগ দিনদিন অনিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়ে। ফলে তাকে ঘন ঘন হাসপাতালে ভর্তিও হতে হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •