বৃহস্পতিবার দৈনিক বাংলাদেশ জাগরণ একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে “কক্সবাজারে আদালতের আদেশ অমান্য করে জনপ্রতিনিধির পশ্রয়ে জমি দখলের চেষ্টা” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টি গোচর হয়েছে। উল্লেখিত সংবাদদ্বয় সম্পূর্ন মিথ্যা, বানোয়াট, মানহানিকর ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত হওয়ায় আমি উক্ত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

মূলত ব্যক্তিগত, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা এবং আমার জনপ্রিয়তা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে একটি প্রতিপক্ষ আমার ও আমাদের পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। এই বিরোধের জের ধরে আমি চেয়ারম্যান হওয়ার পর থেকে ওই প্রতিপক্ষের লোকজন আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে বিভিন্নভাবে অপপ্রচার চালিয়ে আসছে।

আমি দৃঢ়তার সাথে বলতে পারি, আমার পশ্রয়ে জমি দখলের চেষ্টা সংবাদ প্রকাশ করাও ওই প্রতিপক্ষের ইন্ধন রয়েছে। ওই পক্ষ সাংবাদিকদের মিথ্যা তথ্য সরবাহ করেছে।

সংবাদে উল্লেখ মতে, জায়গাদখলকারী সন্ত্রাসীরা স্থানীয় জনপ্রতিনিধির ছত্রছায়ায় থেকে বিভিন্নভাবে অপকর্ম করে আসছে। তারা ঘটনাস্থলে জনপ্রতিনিধির বাহুবল দেখিয়ে জায়গা দখলের চেষ্টা চালায়। সবাই জানে সারাজীবন আমি অন্যায়, অনিয়ম এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে আসছি। সেখানে আমার পশ্রয়ে জমি দখলেরর বিষয়টি হাস্যকর বটে!

তাছাড়া যেদিন থেকে করোনা ভাইরাস সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশও হানা দেয়। সেদিন থেকে আজবধি প্রতিটি পাড়া মহল্লায় সরকারি ও ব্যাক্তিগত সহায়তা দিতে দিন রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। তার মধ্যে আমার নির্বাচনী এলাকায় কেউ যদি তাদের ব্যক্তিগত জমি নিয়ে বিরোধে জড়ান, কোর্ট এবং থানায় বিচার চলমান থাকে। সেখানে আমার করণীয় কি থাকে?

তারপরও আমি দৃঢ়তার সাথে বলছি কোন জমি দখল, কোন অপরাধীর সাথে আমার কোনো ধরণের সংশ্লিষ্টতা নেই। বর্তমানে আমি একজন জনপ্রতিনিধি। খুব সততার সাথে নিজের দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। সাংবাদিক ভাইদের কাছে আমার অনুরোধ- আপনারা যাচাই-বাছাই করে সঠিক সংবাদ প্রকাশ করবেন।

পরিশেষে আমি আমার বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংবাদগুটির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং এব্যাপারে প্রশাসনসহ কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ করছি।

প্রতিবাদকারী

টিপু সুলতান
চেয়ারম্যান

১০নং ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদ, কক্সবাজার সদর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •