জে. জাহেদ , চট্টগ্রাম :

নগরীর সাগরিকা অঞ্চলের একজন করোনা সনাক্ত রোগী, যিনি গতকাল করোনভাইরাস পরীক্ষায় ইতিবাচক এসেছিলেন। তিনি পহেলা এপ্রিল এ শাখাটি পরিদর্শন করেছিলেন।

বৃহস্পতিবার কর্তৃপক্ষ নগরীর ব্যাংক এশিয়ার আন্ডারকিল্লা শাখাটি তালাবদ্ধ করে এবং ১৫ জন কর্মীকে কোয়ারেন্টাইন বা পৃথকীকরণে থাকার নির্দেশ দেয়।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন বলেন, “গতকাল করোনভাইরাস পরীক্ষায় ইতিবাচক আসা চট্টগ্রামের সাগরিকা এলাকার একজন রোগী শাখাটি পরিদর্শন করেছিলেন।”

শাখা কর্মকর্তা আলী তারেক পারভেজ বলেন, ‘আমরা সকলেই বর্তমানে আমাদের বাড়িতে থাকি। অফিসটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এর আগে বুধবার তিনটি রোগীর চট্টগ্রামে করোনভাইরাস ধরা পড়ে। আক্রান্ত রোগীরা হালিশহর, সীতাকুন্ড এবং সাগরিকিকা অঞ্চলের বাসিন্দা।

বন্দর নগরী ভাইরাসটির বিস্তার রোধে দেশব্যাপী বন্ধের মধ্যে ৩ এপ্রিল ৬৭ বছর বয়সী প্রথম করোনভাইরাস রোগী পাওয়া যায়। দু’দিন পরে রোগীর ২৫ বছর বয়সী ছেলেও ভাইরাসের জন্য ইতিবাচক পরীক্ষা করেছিলেন। শহরটিতে বর্তমানে কোভিড -১৯ এর সক্রিয় পাঁচটি মামলা রয়েছে। সমস্ত রোগী বর্তমানে বিচ্ছিন্ন এবং চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বাংলাদেশের ভাইরাস থেকে এখনও পর্যন্ত ২১ জন মারা গেছে এবং ৩৩০ জন এতে আক্রান্ত হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •