পেকুয়া প্রতিনিধি :

কক্সবাজারের পেকুয়ায় করোনা সংক্রমণ ঝুঁকির কারণে বন্ধ থাকা করাতকল চালু করতে মিস্ত্রি কামাল হোসেনকে পিটিয়ে জখম করেছে বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাস্টার নজরুল।

মঙ্গলবার (৭এপ্রিল) দুপুরে টইটং ইউনিয়নের হাজী বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মারধরে আহত কামাল হোসেনকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

আহত কামাল হোসেন একই ইউনিয়নের বড় পাড়া এলাকার নকশা মিয়ার ছেলে।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় কামাল হোসেন সাংবাদিকদের জানান, টইটং ইউনিয়নের হাজী বাজারে অবস্থিত রুহুল কাদেরের করাতকলে তিনি মিস্ত্রি হিসেবে কাজ করেন। মূলত করাতকলটি পরিচালনার দায়িত্ব ছিল তাঁর। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে সরকার সকল মিল কারখানা বন্ধ রাখার নির্দেশ দিলে তিনি আর কাজে যাননি। এতে বন্ধ ছিলো করাতকলটির কার্যক্রম। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে করাতকলটির মালিক রুহুল কাদের হাজী বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতিকে নালিশ দেয়। এরপর তাঁরা করাতকল চালু করার জন্য কামাল হোসেনকে ডেকে পাঠান। মঙ্গলবার দুপুরে কামাল হোসেন হাজী বাজারে তাঁদের সাথে দেখা করতে গেলে মাত্র তাঁর উপর চড়াও হন বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাস্টার নজরুল ইসলাম। ঝুঁকি নিয়ে করাতকল চালাবে না জানালে তাঁকে কিল-ঘুষি মারতে শুরু করে মাস্টার নজরুল। মারধর থেকে বাঁচতে দৌড়ে পালাতে চাইলে তাঁকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুঁড়ে মাস্টার নজরুল। এতে সে গুরুতর আহত হয়।

মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে হাজী বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাস্টার নজরুল বলেন, করাতকল বন্ধ করছিল না বলে আমি কামাল হোসেনকে শাসিয়েছি মাত্র। কোনভাবে মারধর করিনি। উপজেলা প্রশাসন থেকে বাজারের নিত্যপণ্যের দোকান ছাড়া সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। এরই ধারাবাহিকতা আমি তাঁদের করাতকল বন্ধ রাখতে বলেছি। মারধরের অভিযোগটি সম্পূর্ণ মিথ্যাচার।

এব্যাপারে জানতে করাতকলটির মালিক রুহুল কাদেরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে, তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

পেকুয়া থানার ওসি কামরুল আজম বলেন, বিষয়টি জানতে পেরে আমি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। ভুক্তভোগীর পক্ষে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •