মাতামুহুরী নদীর পানিতে ডুবে ২ ছাত্রীর মৃত্যু

প্রকাশ: ৭ এপ্রিল, ২০২০ ০৭:২৯ , আপডেট: ৭ এপ্রিল, ২০২০ ০৮:২৪

পড়া যাবে: [rt_reading_time] মিনিটে


পানিত ডুবে মারা যাওয়া দুই ছাত্রীর নিথর দেহ। ছবি- এম. মনছুর আলম, চকরিয়া।

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চকরিয়ায় মাতামুহুরী নদীর পানিতে ডুবে দুই ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে।
মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলার কাকারা ইউনিয়নের ৩নম্বর ওয়ার্ডের লোটনী সংলগ্ন হাজিয়ানস্থ মাতামুহুরী নদীর বেড়িবাঁধের বালির পয়েন্ট এলাকায় এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন -কাকারা ইউনিয়নের লোটনী এলাকার আবদুল মোনাফের কন্যা ইসমা জন্নাত (১৩) ও একই এলাকার শামসুর রহমানের কন্যা আসমাউল হুসনা (১০)। তারা দুইজনই স্থানীয় মাদ্রাসা পড়ুয়া ছাত্রী। ইসমা জন্নাত অষ্টম শ্রেণী ও আসমা পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্রী।
স্থানীয়রা জানিয়েছে, এলাকার কিছু বালুদস্যু দীর্ঘদিন ধরে বেপরোয়াভাবে মাতামুহুরী নদী থেকে বালু উত্তোলন করে আসছে। তাদের কারণে নদীর কিনারে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। সৃষ্ট ওই গর্তে পড়েই দুই ছাত্রীর করুণ মৃত্যু হয়েছে।
কাকারা ইউনিয়ন পরিষদের ৩নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য নুর মোহাম্মদ চৌধুরী মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
স্থানীয় ও নিহতের পরিবার জানায়, মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ইসমা জন্নাত ও আসমাউল হুসনাসহ ৪-৫ জন দলবদ্ধভাবে মাতামুহুরী নদীতে গোসল করতে নামে। ওই সময় দুইজন পানিতে তলিয়ে যায়। কিছুক্ষণ পর একজনের মৃতদেহ ভেসে ওঠে।
খবর পেয়ে স্থানীয় ও পরিবারের লোকজন গিয়ে কিছুক্ষণ পরে অপরজনকে উদ্ধার হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।
এদিকে, কাকারা দক্ষিণ লোটনি এলাকার বাসিন্দা জিয়াউর রহমান জানান, ফরিদুল আলম ও ড্রাইভার আবদুল মান্নান নামের দুই ব্যক্তির নেতৃত্বে দীর্ঘদিন ধরে মাতামুহুরী নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন চলছে। এ বিষয়ে প্রশাসনকে লিখিত অভিযোগও করা হয়েছিল। বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আগেভাগে ব্যবস্থা নিলে হয়তো এমন দুর্ঘটনাটি ঘটতো না।
ইজারাবিহীন বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানিয়েছে স্থানীয়রা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •