মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

মহেশখালী উপজেলার কালারমার ছরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আত্মসমর্পণকৃত ৯৬ জন জলদস্যু ও শীর্ষ অস্ত্রের কারিগরের প্রতিটি পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল হতে ১ লক্ষ টাকা করে ৯৬ লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করা হয়েছে। রোববার ৫ এপ্রিল সকালে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের শহীদ এটিএম জাফর আলম সিএসপি সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক অনুষ্ঠানে ৯৬ টি পরিবারকে এ অনুদান প্রদান করা হয়। ৯৬ জন জলদস্যু ও শীর্ষ অস্ত্রের কারিগর আত্মসমর্পণের আগে তাদেরকে এ অনুদান দেওয়া হবে বলে রাষ্ট্রের পক্ষ হতে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিলো।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার-২ আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এ.বি.এম মাসুদ হোসেন বিপিএম (বার), জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান। আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, ৯৬ জন জলদস্যু ও শীর্ষ অস্ত্রের কারিগর আত্মসমর্পণের সফল মধ্যস্থতাকারী আনন্দ টিভি’র চট্টগ্রাম ব্যুরো চীফ ও কক্সবাজারের পেকুয়ার সন্তান এম.এম আকরাম হোসাইন।

অনুষ্ঠানে অতিথি ও বক্তারা ৯৬ জন জলদস্যু ও শীর্ষ অস্ত্রের কারিগরের আত্মসমর্পণের মধ্যস্থতাকারী এম.এম আকরাম হোসাইনের ভূয়সী প্রশংশা করে বলেন, এম.এম আকরাম হোসাইন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাষ্ট্রকে যে সহায়তা করেছেন, তা একটা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন সভাপতির বক্তব্যে আত্মসমর্পণ করা জলদস্যুর মতো সেখানকার অন্যান্য অপরাধীদেরও রাষ্ট্রের কাছে আত্মসমর্পণের আহবান জানান। এসপি এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম (বার) ৯৬ জন জলদস্যু ও অস্ত্র তৈরীর শীর্ষ কারিগরকে আত্মসমর্পণ করানো ছিলো কক্সবাজার জেলা পুলিশের জন্য বড় একটা চ্যালেঞ্জ। এ চ্যালেঞ্জে কক্সবাজার জেলা পুলিশ সফলভাবে উত্তীর্ণ হয়েছে ইনশাআল্লাহ।

এছাড়া গত ২ এপ্রিল এই ৯৬ জন জলদস্যু ও শীর্ষ অস্ত্রের কারিগরের পরিবারকে হোয়ানক টাইমবাজারে কক্সবাজার জেলা পুলিশের পক্ষে তাদের খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়।

গত বছরের ২৩ এপ্রিল আত্মসমর্পণ করে এখন কারাগারে থাকা ৯৬ জন জলদস্যু ও অস্ত্রের শীর্ষ কারিগরের পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ হতে এক লক্ষ টাকা করে অনুদান পেয়ে মহান আল্লাহতায়লার তারা কাছে শোকরিয়া জ্ঞাপন এবং কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম (বার) সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান। ৯৬ জন জলদস্যু ও অস্ত্রের শীর্ষ কারিগরের পরিবারের সদস্যরা এসময় বলেন, “আত্মসমর্পণের আগে আমাদের দায়িত্ব নেওয়ার ব্যাপারে যখন মধ্যস্থতাকারী ও আনন্দ টিভি’র চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান এম.এম আকরাম হোসাইনকে আমরা বলেছিলাম, তখন তিনি কক্সবাজারের এসপি এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম (বার) মহোদয়কে বললে, সেদিন এসপি মহোদয় আমাদের সংসার চালানোর দায়িত্ব নিজে নিয়েছিলেন। এক লক্ষ করে অনুদান প্রদান করা ছাড়াও এসপি মহোদয়ের উদ্যোগে চলমান করোনা ভাইরাসজনিত সংকটে আমাদের যে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে তা আমরা কোন দিন ভুলতে পারবো না। তারা আরো বলেন, এসপি মহোদয় আমাদেরকে দেওয়া কথা রেখে এই দুর্দিনে আমাদের খোঁজ খবর নিয়েছেন, সেটা আমাদের জন্য বিশাল প্রাপ্তি।”

প্রসংগত, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, পুলিশের আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক বিপিএম (বার) পিপিএম, সাংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক সহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে কালারমার ছরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এসপি এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম (বার) এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক অনুষ্ঠানে ৯৬ জন জলদস্যু ও অস্ত্রের শীর্ষ কারিগর তাদের অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম, অস্ত্রশস্ত্র সহ আত্মসমর্পণ করেছিলো।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •