আবুল কালাম চট্টগ্রাম :

কোনো মৌসুমেই সান্তিতে থাকতে পারতেছেনা না নগরবাসী, বর্ষা মৌসুমে রাস্তা ঘাট খানাখন্দে জলাবদ্ধতার দুর্ভোগ আর শুষ্ক মৌসুমে ধুলাবালির নাখাল দুর্ভোগ। এই মুহুর্তে বিশ্বব্যাপী কোভিট ১৯ করোনাভাইরাসের সংক্রমণের আতঙ্কে ঘর বন্দি হয়ে আছে পুরা নগরবাসী। এর মধ্যেও আর এক আতংক মশার অসহনীয় যন্ত্রণা।তবে ঘরে-বাইরে, বাসা কিংবা অফিস সব জায়গায় মশার উৎপাত বাড়ছেই।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) মশা নিধন কার্যক্রম কোনো সময়েই গতি পায়নি। অথচ চসিকের পরিচ্ছন্ন বিভাগের তথ্যমতে, গত ৪ বছরে মশক নিধন কর্মসূচিতে ৪ কোটি ১০ লাখ ৪০ হাজার টাকা ব্যয় করা হয়েছে।

মশার এই প্রচণ্ড উপদ্রবের মধ্যেই আবার চসিক মশা নিধনে ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয় গত ফেব্রুয়ারিতে। এছাড়া নগরীর নালা-খাল বদ্ধ অবস্থায় থাকার কারণে এই মৌসুমে মশা বাড়ছে বলে জানান কীট গবেষকরা।

নগরবাসীর অভিযোগ, আগের বছর এই সময়ে সিটি কর্পোরেশনের লোকজন নালা-নর্দমা ও ভবনের আশেপাশে ওষুধ ছিটাতেন। কিন্তু এ বছর ওষুধ ছিটানো কার্যক্রম দেখা যাচ্ছে না। ঘরে কয়েল জ্বালিয়ে ও মশার মারার ওষুধ স্প্রে করেও মশার উৎপাত থেকে রেহাই মিলছে না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নগরীর কিছু কিছু এলাকায় প্রায় ৬-৭ মাস আগে মশা নিধনে ওষুধ ছিটানো হয়। এরপর দীর্ঘদিন ধরে এ কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। কেউ কেউ কেউ বলছেন ৬-৭ মাস পূর্বে যে ওষুধ প্রয়োগ করেছে সেটাও কোনও কাজে দেয়নি।

কেবল লোকদেখানো ওষুধ ছিটানো হলেও মশা কমছে না বেড়েই চলেছে। এমনকি নগরীর পাঁচ তলা, সাত তলা, আট-নয় তলা ফ্ল্যাটে, অফিস, আদালত, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও মশার যন্ত্রণা থেকে রেহাই পাচ্ছে না লোকজন। এই পরিস্থিতিতে সকলের অভিযোগের আঙ্গুল চসিকের দিক।

নগরীর নয়াবাজারের ফার্মেসী ব্যবসাই এরশাদ মিঠু বলেন, ‘মশার যন্ত্রণায় রাত দিন ২৪ ঘন্টা বাসাও স্বস্তিতে বসতে পারছি না। মশার উৎপাত মারাত্মকভাবে বেড়েছে। এসব মশা আসছে কোত্থেকে বুঝতে পারছি না। চসিকও হাত গুটিয়ে বসে আছে। ছেলে- মেয়েরা ঠিকমতো পড়াশোনাও করতে পারছে না। মশার কয়েল জ্বালিয়ে, স্প্রে দিয়েও মশা প্রতিহত করতে পারছিনা। চট্টগ্রাম শহর বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।’

তিনি ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, ‘সিটি কর্পোরেশন এ এলাকায় মশার ওষুধ বা স্প্রে কবে প্রয়োগ করেছে মনে নেই। ৭/৮ মাস আগে সিটি কর্পোরেশন যেসব ওষুধ ছিটিয়েছে তা সম্ভবত ভেজাল ঔষুধ।

যার কারণে কোনও কাজ দেয়নি। অনেক সময় বিভিন্ন নিউজ, ফেসবুকে দেখা যায় বিভিন্ন স্থানে মেয়র নিজ হাতেই মশার ওষুধ ছিটাচ্ছেন। আমার মনে হয়, এগুলো লোকদেখানো ছাড়া আর কিছু না।’

আগ্রাবাদ এলাকার নাজির বলেন, ‘আমার এলাকায় মশার ওষুধ একবারও ছিটানো হয়নি। বৃষ্টির কারণে এখন মশা আরও বেড়ে গেছে। সারাদিন দরজা-জানালা বন্ধ করে রাখি তবুও কিভাবে মশা ঢুকে বুঝতে পারিনা। আমরা যারা বিল্ডিংয়ে থাকি তাদের এই দশা, তবে যারা ঝুপড়ি কিংবা কলোনিতে থাকেন তাদের কি অবস্থা আল্লাহ জানেন। বিশেষ করে শিশুরা মশার কামড় সহ্য করতে না পেরে কান্না কাটি করে সারাক্ষণ।’

তিনি আরও বলেন, ‘মেয়র আ জ ম নাছির যদি দায়িত্ব নিয়ে পুরো চট্টগ্রাম শহর নজরদারিতে রেখে মশার সঠিক ওষুধ প্রয়োগ করাতেন এবং মশা নিধনের জরিপ চালাতেন তাহলে নগরবাসীকে এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হতো না। মেয়র মানে নগরপিতা। একজন পিতা তার সন্তানকে ভালো রাখতে কত না কষ্ট করেন। কিন্তু নগরপিতা আমাদের মতো সাধারণ মানুষদের জন্য কী করলো? প্রতিদিন মশার উৎপাতে অতিষ্ঠ। কিন্তু আমাদের নগরপিতার কোনও মাথা ব্যথা নেই।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •