বার্তা পরিবেশক:
করোনা মহামারিতে দেশজুড়ে যখন স্থবির পরিবেশ চলছে অার কেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের অায় রোজগার সেখানে সাময়িক বন্ধ! তেমনিভাবে দিনমজুরদের নেই কোন বিকল্প পাথেয় যেটা দিয়ে পরিবারের নুন্যতম সংসারের যোগান দিবে! ফলে তাদের দুশ্চিন্তার কোন অন্ত নেই!

এই সময়ে মানবিক ভাবনায় নিজের ব্যবসার ঐচ্ছিক অর্থ দিয়ে দেশের চলমান করোনা মহামারির কঠিন সময়ে মিশ্র খাবারের বিশেষ ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে হতদরিদ্র দেড় হাজার পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন কক্সবাজার জেলার তরুণ উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী জসীম উদ্দিন।

তিনি বলেন, অামি সম্পূর্ণ মানবিক চিন্তায় ২৯ মার্চ রবিবার বিকাল ৪ টায় অামার জন্মভূমি উখিয়ার জালিয়াপালংয়ের বিভিন্নস্থানে এসব ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছি। এই তরুণ উদ্যোক্তা অারো বলেন, যারা বিত্তবান তারা নিজনিজ এলাকার অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ালে অন্তত দেশের ক্রান্তিকাল সময়ে হতদরিদ্র মানুষের কিছুটা স্বস্তি অাসবে।
তিনি জানান এই মিশ্র খাবারে রয়েছে চাউল, অালু, তেল, পিয়াজ, চিনিসহ প্রয়োজনীয় খাবার সামগ্রী।

তিনি অারো জানান, স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবীদের সমন্বয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জালিয়াপালং, সোনাইছড়ি, সোনারপাড়া, ডেইলপাড়া, নিদানিয়া, ইনানী, মোহাম্মদ শফিরবিল, রুপপতি, ইমামের ডেইল, চেপটখালী, মনখালীতে পর্যায়ক্রমে দেয়া হচ্ছে।
এসব ত্রাণ পেয়ে জালিয়াপালং এলাকার কেটে খাওয়া দিনমজুররা বলেন অামরা খুবিই অানন্দিত কারণ যেখানে জনপ্রতিনিধিরা অামাদের খোঁজ নিতে ভূলে যাচ্ছে সেখানে এমন মানবিক মানুষের হাত বাড়িয়ে দেয়া অাসলেই অামাদের জন্য স্বস্তিদায়ক এবং সুখবর।
এসব ত্রাণ সামগ্রীর একজন উপকারভোগী অাব্দুল অালিম জানান, অামরাদের এলাকার তরুণ উদ্যোক্তা জসীম উদ্দিনের জন্য প্রাণভরে দোয়া করছি। সমাজের বিত্তবানরা এভাবে এগিয়ে অাসলে সমাজের অসহায় দরিদ্র মানুষের একটু হলেও হাসিমুখে থাকার সুযোগ হবে।

এ ছাড়াও তিনি কক্সবাজার সহকারী পুলিশ সুপার ইকবাল হোসাইনের নেতৃত্বে কক্সবাজার করোনা তহবিলে দশ হাজার টাকা দিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •