আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে ইউরোপের জ্যেষ্ঠ রাজনীতিবিদ ও ফ্রান্সের সাবেক মন্ত্রী প্যাট্রিক ডেভেডজিয়ানের মৃত্যু হয়েছে।

রোববার (২৯ মার্চ) সকালে দেশটির ৭৫ বছর বয়সী এ রাজনীতিবিদের মৃত্যু হয়। মৃত্যুর তিন দিন আগে এক টুইট বার্তায় প্যাট্রিক লিখেছিলেন, তিনি খুব ক্লান্ত তবে অবস্থা স্থিতিশীল।

গত ২৫ মার্চ তার শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ার পর থেকে তিনি প্যারিসের দক্ষিণের একটা বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। তার শরীরে অন্যান্য কোনো অসুখ ছিল কি-না তা জানা যায়নি।

প্যাট্রিকের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, শনিবার (২৮ মার্চ) তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। চিকিৎসকরা তাকে কোমায় রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, কিন্তু তিনি আর টিকে থাকতে পারেননি।

গত বৃহস্পতিবারও টুইট করেছিলেন প্যাট্রিক। ওই টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘আমি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। আমার জন্য চিকিৎসক ও নার্সদের অনেক করতে দেখেছি। আমি ক্লান্ত তবে অবস্থা স্থিতিশীল। করোনায় আক্রান্ত রোগীদের এই অবিরাম সেবা দেয়ার জন্য আমি ওই চিকিৎসক ও নার্সদের অসংখ্য ধনব্যাদ জানাই।’

ফ্রান্সের সাবেক প্রেসিডেন্ট নিকোলাস সারকোজির আমলে বেশ কয়েকবার মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন প্যাট্রিক ডেভেডজিয়ান। তিনি ইউরোপে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বেশ কয়েকজনের রাজনীবিদদের একজন ছিলেন।

হাটস-ডি-সাইন কাউন্সিল ফ্রান্সের বৃহত্তম রাজনৈতিক সংগঠন। তিনি এর প্রেসিডেন্ট ছিলেন। প্যাট্রিক ডেভেডজিয়ানের মৃত্যুর পর রোববার সংগঠনটির এক মুখপাত্র বলেন, তার মৃত্যু হাটস-ডি-সাইন কাউন্সিলের জন্য একটি বিরাট ধাক্কা।

তার মৃত্যুতে শোক জানিয়ে ফ্রান্সের রিপাবলিকান পার্টির প্রধান ফিলিপ জুভিন বলেন, সবার সেরা ছিলেন প্যাট্রিক। তিনি ছিলেন অপ্রতিরোধ্য।

শনিবার (২৮ মার্চ) রাতে ফ্রান্সের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ জানায়, দেশটিতে করোনাভাইরাসে নতুন করে ৩১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে, যা গতদিনের চেয়ে ১৬ শতাংশ বেশি। আর এতে মোট মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৩১৪ জনের। দেশটিতে করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩৭ হাজার ৫৭৫।

করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত ফ্রান্স আক্রান্তদের সেবা দিতে দেশজুড়ে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •