আব্দুস সালাম, টেকনাফ
করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টি, মানুষকে ঘরে থাকা, সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ও হ্নীলা নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরে প্রচারাভিযান ও টহল চালিয়েছে উপজেলা প্রশাসন ও নৌবাহিনী। শনিবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবুল মনসুর, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর কক্সবাজার জেলা সমন্বয়ক লেঃ কমান্ডার রাজিবুল ইসলামের নেতৃত্বে ১৮ সদস্যের একটি দল টহল দেন ও সচেতনতা সৃষ্টিতে হ্যান্ড মাইক দিয়ে জনগণকে ঘরে থাকাসহ করোনা প্রতিরোধে নানা পরামর্শ প্রদান এবং প্রচারপত্র বিলি করা হয়। এসময় টেকনাফের দায়িত্বপ্রাপ্ত নৌবাহিনীর কন্টিজেন্ট কমান্ডার লেফটেন্যান্ট মোঃ আছাদুজ্জামান ইমরান উপস্থিত ছিলেন। গত চারদিন ধরে উপজেলার পৌরশহরসহ গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় তৎপরতা চালায় নৌবাহিনীর সদস্যরা। এ সময় সরকারি নির্দেশনা না মেনে প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হওয়া ও পথচারীদের সতর্ক করা হয়। নির্দেশনার আওতার বাইরে থাকা খোলা দোকানগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। দিনব্যাপী নৌবাহিনীর টহলে পৌর শহরের প্রধান সড়ক একেবারে ফাঁকা হয়ে যায়। তাছাড়া জনসমাগম বন্ধসহ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করতে প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবুল মনসুর জানান, বিদেশ থেকে ফেরত আসা ব্যক্তির অবস্থান নির্ণয় ও তাদের নিজ নিজ অবস্থানে কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করায় হবে নৌবাহিনীর মূল লক্ষ্য। এছাড়া সামাজিক দূরত্ব ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থার জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তা দিতে নৌবাহিনী নিয়োজিত করা হয়।
নৌবাহিনীর কক্সবাজার জেলা সমন্বয়ক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাজিবুল ইসলাম-উপজেলা প্রশাসনের সহায়তায় নৌবাহিনীর একটি কন্টিজেন্ট টিম কাজ করছে। বিশেষ করে রোহিঙ্গা ক্যা¤প ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় সেদিকে বিশেষ ও প্রচারনা চালানো হচ্ছে। পাশাপাশি সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য টহল জোরদার করা হচ্ছে। এছাড়াও সাবরাং বড় মাদ্রাসার আলেম ওলামাদের সচেতনতা মূলক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •