Asaduzzaman Jibon

কেন জানি মনে হইতেছে, এই দেশে করোনা ভাইরাস মানুষরে ততো বেশি আক্রমন করতে পারবেনা। এই দেশের মানুষ নিয়া যত’টা আতংকে ছিলাম, তারচেয়েও বেশি সচেতনতা তারা দেখায় ফেলছে।

ব্যারিস্টার সুমনের ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে সে বলছিলো- এই দেশরে কি লক ডাউন করা সম্ভব?
জনগন দেখায় দিচ্ছে, প্রয়োজনে এই দেশের মানুষ চিন্তার বাইরের অনেক কিছুই সম্ভব করে ফেলে। মানুষ এখন ঘর থেকে বের হয়না। হয়তো শতভাগ মানুষরে কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া সম্ভব হয়নাই, তবে বেশিরভাগ মানুষই ঘরে আছে। পৃথিবীর কোন উন্নত দেশেই শতভাগ মানুষরে ঘরে আটকাইতে পারেনাই। সেইদিক থেকে বাংলাদেশের মতন একটা অনুন্নত দেশ অনেক বেশি আগায়ে আছে।

এই দেশের মানুষ স্বভাবগত ভাবে খারাপ হইলেও, এই দেশের উপর একটা রহমত আছে। যেকোন প্রাকৃতিক দূর্যোগে আবহাওয়া অফিস যখন ১০ নাম্বার সতর্কতা সংকেত দেয়, তখন দূর্যোগ মানচিত্রের পাশ কাটাইয়া চলে যায়৷ এই দেশরে সহজে কোন কিছুই ছুঁইতে পারেনা।

দেশে গুজবের পর গুজব ছড়াইতেছে; মানুষ সেই গুজবে এখন আর বিশ্বাস করেনা। গুজব শুইনাই হাইসা গড়াগড়ি খায়। এই দেশের মানুষের মগজে এখন চিন্তা করার আংশিক ক্ষমতা ঢুকছে।

কেন জানি মনে হইতেছে- করোনাতে এই দেশ খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবেনা। অল্পের উপর দিয়া চইলা যাবে। সমুদ্র থেকে উঠে আসা ঘূর্নিঝড় যেমন পাশ কাটাইয়া চইলা যায়, তেমনি করোনার মতন বিপদও যাইবো। প্রাকৃতিক দূর্যোগ থেকে বাঁচার জন্য আমাগো একটা সুন্দরবন আছে, আর এইসব মহামারি থেকে বাঁচার জন্য এই দেশের মানুষের উপর একটা অদৃশ্য রহমত আছে।

মহান স্রষ্টার উপর বিশ্বাস ও আস্থার জায়গা থেকেই বলছি- আর কয়’টা দিন এইভাবে ঘরে থাকেন, কোন কিছুই আমাদের ছুঁইতে পারবেনা।

তারপর আবার আড্ডা হবে। প্রেমিকার হাত ধরে সময় কাটবে। চায়ের দোকানে গাঁজাখুরি গল্প হবে। একজন আরেকজনরে বলবে- ওই দোস্ত, বিড়ি দে তো।
আবার কথা হবে আমাদের। দেখা হলে, সাহস করে হাত বাড়িয়ে দেওয়া যাবে। কোলাকুলি করে বলা যাবে- আরে, বহুদিন পর দেখা হইলো; কেমন আছিস রে?

আবার আমাদের স্কুল, কলেজ, যাওয়া হবে। শহরের ট্রাফিক জ্যামে বসে প্রধানমন্ত্রীর নাম তুলে গালি দিয়ে বলা হবে- আমার শা…র দেশ, এক ঘন্টার রাস্তা ১০ ঘন্টা লাগে।
দেশটা থাকবে; দেশের মানুষগুলো না থাকলে ট্রাফিক জ্যামই হইবো না৷ এই জ্যাম ছাড়া ফাকা রাস্তা তো আমাদের ভাল লাগেনা৷ আমরা আবার একসাথে শহরের রাস্তায় নামতে চাই। একসাথে বাঁচতে চাই।

আমরা আবার ফিরবো, ফিরবোই পথে। তবে এবার ঘৃণা, ক্রোধ, অভিযোগ ও অভিমান নিয়ে নয়; আমরা ফিরবো ভালোবাসা নিয়ে। এবার বেঁচে ফিরলে, আমরা দু হাত ভরে ভালোবাসা ছড়িয়ে দিবো এইসব ইঞ্জিনের শহরের অলিতে গলিতে। ❤

ফিরবার আগে পর্যন্ত ভাল থাকুন। সুস্থ থাকুন। ঘরে থাকুন।
-ফেসবুক থেকে

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •