মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

২৬ মার্চ বৃহস্পতিবার। মহান স্বাধীনতা দিবস। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালো রাত্রিতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নারকীয় গণহত্যাযজ্ঞ চালনোর পর সেই ঐতিহাসিক ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ডাক দেওয়া হয়েছিলো। তখন থেকে দীর্ঘ ৯ মাস বাংলার দামাল ছেলেরা মহান মুক্তিযুদ্ধ করে ছিনিয়ে এনেছিলো লাল-সবুজের পতাকা, প্রিয় বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন ভূখন্ড।

সেই ঐতিহাসিক স্বাধীনতা দিবসকে গত ৪৮ বছর ধরে জাতি স্মরণ করেছে অত্যন্ত শ্রদ্ধাভরে। এই জাতীয় দিবসটি এদেশের মানুষের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সভ্যতা, কৃষ্টি, সংগ্রাম, মুক্তির অংশ। তাই প্রতিবছর ২৫ মার্চ দিবাগত রাত ১২’০১ মিনিট হতে বীর শ্রদ্ধা নিবেদন করতে গিয়ে সারাদেশের শহীদ মিনারের পবিত্র বেদী গুলো ফুলে ফুলে ভরে উঠতো। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাময়ী আরো কতোনা বৈচিত্র্যময় কর্মসূচী রাখা হতো। কিন্তু ভয়ংকর করোনা ভাইরাস জীবাণু সংক্রামিত হওয়ার আশংকায় সারাদেশের মতো কক্সবাজারেও মহান স্বাধীনতা দিবসের কোন কর্মসূচী রাখা হয়নি। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলার সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্য সচেতনতা আমাদের হৃদয়ছোয়া দেশপ্রেমের বর্হিপ্রকাশ ঘটাতে দেয়নি ডাইনী করোনা ভাইরাস। গিলে খেয়েছে নাগরিকদের সমস্ত দেশপ্রেম, সামাজিকতা আর অনুষ্ঠানমালা। কক্সবাজারের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যেতে দেয়নি। হাহাকার করছে, আমাদের শ্রদ্ধা নিবেদনের অন্যতম স্থান কক্সবাজার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। আমরা ভূলে যায়নি তোমাদের, আমাদের হয়ত সাময়িকভাবে ভয়ংকর মহামারী করোনা ভাইরাস ঠেকিয়ে দিয়েছে সাময়িক স্বাভাবিক পথচলা। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান-তোমরা আমাদের সাহসের বাতিঘর, চেতনার উৎস, অনুপ্রেরণার মহাসাগর, অদম্য এগিয়ে চলার পাথেয়। আমরা তোমাদের ভূলবোনা।

(প্রতিবেদনের ছবিটি ২৬ মার্চ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় ধারন করেছেন সাংবাদিক মোর্শেদুর রহমান খোকন।)

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •