করোনা প্রতিরোধে সেনা বাহিনী ও জেলা প্রশাসনের যৌথ অভিযান

সড়কে সেনা, পালাচ্ছে মানুষ

প্রকাশ: ২৬ মার্চ, ২০২০ ০২:৩২ , আপডেট: ২৬ মার্চ, ২০২০ ০২:৫৭

পড়া যাবে: [rt_reading_time] মিনিটে


ইমাম খাইর, সিবিএন

আসসালামু আলাইকুম। এলাকাবাসী, আপনারা ঘরে থাকুন। নিরাপদে থাকুন। বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হবেন না। যারা অপ্রয়োজনে রাস্তাঘাটে ঘুরছেন তারা দ্রুত ঘরে ফিরে যান। দ্রুত কাজ সেরে ফেলুন। কোথাও জড়ো হয়ে থাকবেন না।
মহামারি করোনা ভাইরাস থেকে নিজে বাঁচুন, অপরকে বাঁচতে সহায়তা করুন।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের সহায়তায় করোনা ভাইরাসজনিত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশনের এমন প্রচারণা বেশ চোখে পড়েছে। সাড়া দিয়েছে সাধারণ মানুষ।

সেনা বাহিনীর গাড়িতে টাঙানো ব্যানারে লেখা ছিল- ‘আপনার সুস্থতাই আমাদের কাম্য।’

অভিযানের পর থেকে যাদের খুব একটা প্রয়োজন নেই তারা রাস্তাঘাটে ঘুরাফেরা করে নি। প্রয়োজনীয় কাজ সেরে নিরাপদ গন্তব্যে চলে গেছে। অনেকে সেনা বাহিনী মাঠে দেখে দৌঁড়াতে দেখা যায়।

শহরের কলাতলী, হোটেল মোটেল জোন, হলিডে মোড, লালদীঘিরপাড়, ভোলাবাবুর পেট্রোলপাম্প, বড়বাজার, বাজারঘাটা, কালুরদোকান, রুমালিয়ারছরা ও কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ব্যাপক জনসচেতনতামূলক প্রচারণা চালায় সেনা বাহিনীর সদস্যরা।

যৌথ অভিযানকালে গাড়ির ডকুমেন্টস যাচাই করছেন জেলা প্রশাসনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: মোস্তফা জাবেদ কায়সার।

বৃহস্পতিবারের যৌথ অভিযানে নেতৃত্বে ছিলেন -রামু সেনানিবাস ১৪ বীরের টুআইসি মেজর আরিফ আহমেদ এবং জেলা প্রশাসনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: মোস্তফা জাবেদ কায়সার।

এদিকে, বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সকাল থেকে কক্সবাজার শহরজুড়ে অভিযানকালে সামান্যসংখ্যক প্রাইভেট যানবাহন চলাচল করলেও তা নিয়ন্ত্রিত। টমটম, ইজিবাইক, সিএনজি অতীতের মতো সড়কে তেমন একটা দেখা যায় নি। হাসপাতাল, ফার্মেসী ছাড়া সব ধরণের দোকানপাট বন্ধ। চিরচেনা ব্যস্ততার নগরী এখন অনেকটা স্বব্ধ। জনশূণ্য সাগরতীর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •