মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

সরকারের সনদপ্রাপ্ত সকল ক্ষুদ্র ঋন দাতা প্রতিষ্ঠানের ঋনের কিস্তি আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত পরিশোধ করতে হবেনা। কিস্তি পরিশোধ না করলেও ক্ষুদ্র ঋন গ্রাহকদের ঋন গত ১ জানুয়ারি যে অবস্থায় ছিলো, আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত সে অবস্থায় রাখার জন্য সরকার নির্দেশ দিয়েছে। গত ২২ মার্চ ৫৩ নম্বর সার্কুলার লেটারে মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটির পরিচালক মোহাম্মদ ইয়াকুব হোসেন সনদপ্রাপ্ত সকল ক্ষুদ্র ঋন প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাকে এ আদেশ দিয়েছেন।

সার্কুলার লেটারে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাস এর কারণে বিশ্ববানিজ্য মন্দা যাওয়ার পাশাপাশি এদেশের ব্যবসা বানিজ্যেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। ক্ষুদ্রঋন গ্রহীতাদের ব্যবসা বানিজ্যও বাধাগ্রস্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে। এ অবস্থায় ২০১০ সালের মাইক্রোক্রেডিট বিধিমালার বিধি ৪৪ অনুযায়ী ক্ষুদ্রঋন গ্রাহকদের ঋন গত ১ জানুয়ারি যে অবস্থায় ছিলো, আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত সে অবস্থায় রাখার জন্য নির্দেশ দেওয়া হলো। সার্কুলার লেটারে আরো বলা হয়, ক্ষুদ্রঋন গ্রাহকদের ঋন আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত খেলাপী ঋন অথবা বিরূপ শ্রেণীমানও করা যাবেনা। তবে কোন ঋনের শ্রেণিমান উন্নতি করতে চাইলে তা বিদ্যমান আইনে করা যাবে।

২০০৬ সালের মাইক্রোক্রেডিট বিধিমালার ৯(চ) ধারা ও ৪৮ ধারার ক্ষমতাবলে এ নির্দেশ দওয়া হয়েছে বলে সার্কুলার লেটারে উল্লেখ করা হয়েছে।

মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটি’র এ সার্কুলার লেটারটি কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে ২৩ মার্চ এসেছে। কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নিজস্ব ফেসবুক পেইজে এ সার্কুলার লেটার সহ একটি পোস্ট দেওয়া হয়েছে। পোস্টটি হুবুহু তুলে ধরা হলো :

“করোনা ভাইরাসজনিত মন্দার কারণে কিস্তি পরিশোধে বিলম্ব হলে আগামী ৩০ জুন ২০২০ পর্যন্ত ক্ষুদ্র ঋণের গ্রাহকগণের কোন অসুবিধা হবে না”।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •