ফাইল ছবি
মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার জেলার কোথাও কোন করোনা ভাইরাস জীবাণু (COVID-19) রোগী সনাক্ত করা হয়নি। ৪ জন রোগী প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। তাদের ৩ জন কক্সবাজার সদর হাসপাতালে এবং একজন রামু উপজেলা হাসাপাতালের কোয়ারেন্টাইন বিভাগে রয়েছেন। তারা সকলেই বিদেশ থেকে এসেছেন। কক্সবাজার জেলায় কোন করোনা ভাইরাস জীবাণু আক্রান্ত রোগী সনাক্ত করা হয়েছে কিনা-এমন প্রশ্নের জবাবে কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান সিবিএন-কে এ কথা বলেন।

বুধবার ১৮ মার্চ বেলা আড়াইটার দিকে সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান আরো বলেন, কোয়ারেইন্টানের বাংলা অর্থ হলো-‘সংগনিরোধ’। অর্থাৎ একজন থেকে আরেকজনকে আলাদা করে রাখা। কোন বিদেশ ফেরত ব্যক্তি, কাশি জ্বর ও অন্যান্য লক্ষণ দেখা দেওয়া ব্যক্তির দেহে করোনা ভাইরাস জীবাণু আছে কিনা, তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য কোয়ারান্টাইনে রাখা হয়। আর করোনা ভাইরাস জীবাণু সংক্রামিত হলেই তাকে চিকিৎসার জন্য আইসোলেসনে রাখা হয়।
কক্সবাজারে সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান দৃঢ়তার সাথে আরো বলেন, কক্সবাজারে এখনো কোন করোনা ভাইরাস জীবাণু আক্রান্ত রোগী সনাক্ত করা হয়নি।সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান করোনা নিয়ে গুজব না ছড়ানো জন্য সকলে প্রতি অনুরোধ জানান। করোনা ভাইরাস নিয়ে আতংকিত হওয়ার কোন কারণ নেই। তিনি সিবিএন-কে বলেন, কক্সবাজারে বিমানবন্দর, টেকনাফ স্থল বন্দর, কারাগার সহ সর্বত্র কোয়ারেন্টাইন সহ সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। স্পর্শকাতর স্থাপনা সমুহে সর্বোচ্চ নজরদারিতে রাখা হয়েছে। তিনি স্বাস্থ্য বিভাগের প্রচারিত সতর্কতামূলক ব্যবস্থাসমুহ মেনে চলার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। স্বাস্থ্য বিভাগ সহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থার পাশাপাশি সামাজিকভাবেও এবিষয়ে গণসচেতনতা গড়ে তোলার উপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •