বিদেশ ডেস্ক:

যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম ভার্জিনিয়ায় মঙ্গলবার করোনা ভাইরাস আক্রান্ত প্রথম রোগী শনাক্ত হয়েছে। ফলে দেশটির ৫০টি রাজ্যেই এ ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত হয়েছে। পশ্চিম ভার্জিনিয়ায় আক্রান্ত প্রথম রোগীর বিষয়ে ঘোষণাকালে গভর্নর টিম জাস্টিস বলেন, ‘আমরা এই পরিস্থিতির জন্য অপেক্ষা করছিলাম।’ স্যান ফ্রান্সিসকোর উপকূল অঞ্চলের মতো নিজেদের অবরুদ্ধ করে রাখা বা লকডাউনের চিন্তা করছে নিউ ইয়র্ক। বাংলাদেশ সময় ১৮ মার্চ সকাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ৬ হাজার ৫০৯ জন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ১১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বিভিন্ন দেশের সরকারি হিসাব অনুযায়ী, দুনিয়াজুড়ে এ পর্যন্ত প্রায় দুই লাখ মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন প্রায় আট হাজার।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের মেয়র বিল ডে ব্লাসিও জানিয়েছেন, শহরের ৮৫ লাখ মানুষকে ‘নিজ অবস্থানে আশ্রয় নিতে’ নির্দেশ দেবেন কিনা, সে বিষয়ে দুই দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি।

এ ধরনের পদক্ষেপের ফলে সিংহভাগ মানুষ তাদের বাসায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়বেন। এ রকম অবস্থায় লোকজন খাবার বা ওষুধ কিনতে অথবা ব্যায়াম করা কিংবা কুকুরকে হাঁটানোর মতো কাজে বাইরে বের হতে পারবেন। তবে মানুষের কাছ থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

সান ফ্রান্সিসকো বে এলাকার কর্তৃপক্ষ ৭ এপ্রিল পর্যন্ত সেখানকার ছয় লাখ ৭০ হাজার মানুষকে অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেছেন, বিভিন্ন রাজ্যের গভর্নরদের অনুরোধে ভাইরাস আক্রান্ত এলাকাগুলোতে মাঠপর্যায়ে হাসপাতাল তৈরি করার নির্দেশ দিতে পারে হোয়াইট হাউস। পেন্টাগন প্রধান মার্ক এস্পার জানিয়েছেন, শ্বাস প্রশ্বাসে সহায়ক ৫০ লাখ মাস্ক এবং দুই হাজার ভেন্টিলেটর স্বাস্থ্য বিভাগকে দেবে সেনাবাহিনী। এছাড়া, বেসামরিক নাগরিকদের জন্য সেনাবাহিনী তাদের ১৪টি অনুমোদিত করোনা ভাইরাস পরীক্ষার গবেষণাগারও উন্মুক্ত করে দেবে।

মঙ্গলবার আরও ১১টি রাজ্যের মতো পানশালা ও রেস্টুরেন্ট বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে ফ্লোরিডা। আমেরিকার দীর্ঘতম সময় ধরে চলা স্পোর্টস ইভেন্ট ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা কেন্টাকি ডার্বি সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে। এর আগেই বাতিল করা হয় মাস্টার্স গলফ টুর্নামেন্ট, মার্চ ম্যাডনেস বাস্কেটবল এবং বেসবলের মৌসুম।

যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম ইনডোর শপিং সেন্টার মিনেসোটার মল অব আমেরিকা জানিয়েছে, তাদের সুবিধা মার্চ মাস পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। জেলখানায় একসঙ্গে বেশি মানুষ যেন না রাখতে হয় তা নিশ্চিত করতে লস অ্যাঞ্জেলস কাউন্টির শেরিফ গ্রেফতারের পরিমাণ কমানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

আগামী নভেম্বরে আবারও প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করতে যাওয়া ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, শিগগিরই যুক্তরাষ্ট্রে আভ্যন্তরীণ ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি হতে যাচ্ছে। তবে তিনি বলেছেন, ‘আশা করি আমাদের জাতীয়ভাবে লক ডাউনের মতো বড় সিদ্ধান্ত নিতে হবে না।’

করোনা ভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর তালিকায় আট নম্বরে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। স্বভাবতই এ তালিকার শীর্ষে রয়েছে চীন। এরপর রয়েছে যথাক্রমে ইতালি, ইরান, স্পেন, দক্ষিণ কোরিয়া, জার্মানি ও ফ্রান্সের মতো দেশগুলো। ২০২০ সালের ১৮ মার্চ পর্যন্ত বিশ্বের ১৬৫টি দেশ ও অঞ্চলে এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।

ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইতালিতে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে প্রায় সব দোকান। ভারতও প্রায় সব ধরনের ভিসা বন্ধ করেছে। টুইটার তার কর্মীদের জানিয়ে দিয়েছে, অফিসে না এসে বাড়িতে থেকে কাজ করতে। পণ্য ও মানুষের চলাচলে এত রকম নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বাণিজ্য। আশঙ্কা করা হচ্ছে, করোনা ভাইরাস মহামারির জের ধরে শিগগিরই বিশ্ব অর্থনীতিতে ঘনিয়ে আসতে পারে বিপর্যয়। শুরু হতে পারে ভয়াবহ মন্দা।

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বেশ কিছু শহর ও এলাকা কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বাতিল করা হয়েছে বিভিন্ন এয়ারলাইন্স কোম্পানির বিমান চলাচল। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন স্পোর্টস ইভেন্ট। দোকানে ভিড় করে মানুষ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সংগ্রহ করছেন। তাদের আশঙ্কা, কিছুদিন পর দোকানপাট একেবারে বন্ধ হয়ে যাবে। ইয়ারদেনি রিসার্চ ইনকর্পোরেটেডের প্রতিষ্ঠাতা এড ইয়ারদানি লিখেছেন, ‘করোনা ভাইরাসের মহামারির জেরে শিগগিরই শুরু হতে পারে অর্থনৈতিক মন্দা।’

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান শহরের একটি বন্যপ্রাণীর বাজার থেকে ছড়িয়ে পড়ে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস। একপর্যায়ে এ ভাইরাস নিয়ে বিশ্বজুড়ে জরুরি স্বাস্থ্য পরিস্থিতি (হেলথ ইমার্জেন্সি) ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সূত্র: বিবিসি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •