নীতিশ বড়ুয়া, রামু:

তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো নেতৃত্বের অভাবে আমরা দু’হাজার বছর পরাধীন ছিলাম। বাংলাদেশের মানুষকে পরাধীনতার শৃংখল থেকে মুক্ত করতে অনেক নেতাই চেষ্টা করেছিলেন, কোননেতাই মুক্ত করতে পারেনি। দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যদিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতার ডাক দিলে বাংলার কৃষক-শ্রমিক-ছাত্র-জনতা স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। ৯ মাস রক্তক্ষয়ি যুদ্ধে পাকিস্থানের সামরিক জান্তাকে পরাজিত করে বাংলাদেশ বিজয় অর্জন করে, স্বাধীন হয়।

তিনি ১৭ মার্চ, মঙ্গলবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে কক্সবাজার জেলা ও রামুতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন।

এমপি কমল আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষন আজ বিশ্বের শ্রেষ্ট রাজনৈতিক ভাষন। বঙ্গবন্ধু অগ্নিঝরা ভাষনেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষনা করেছেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ১৮ মিনিটের ভাষনেই বলেছিলেন, আর যদি একটা গুলি চলে, আর যদি আমার লোকদের হত্যা করা হয, তোমাদের কাছে আমার অনুরোধ রইল,- প্রত্যেক ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোল। তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করতে হবে এবং জীবনের তরে রাস্তাঘাট যা যা আছে সব কিছু, আমি যদি হুকুম দিবার নাও পারি, তোমরা বন্ধ করে দেবে।

ওই ভাষণেই বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন আমার বুকের ওপর গুলি চালাবার চেষ্টা করো না। সাত কোটি মানুষকে দাবায়ে রাখতে পারবা না। আমরা যখন মরতে শিখেছি, তখন কেউ আমাদের দমাতে পারবে না। প্রত্যেক গ্রামে, প্রত্যেক মহল্লায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোল এবং তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকো। মনে রাখবা, রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরো দিব। এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাল্লাহ্। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। জয় বাংলা।

ইউনেস্কো আজ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষন বিশ্বের শ্রেষ্ট রাজনৈতিক ভাষণ হিসেবে ওয়ার্ল্ডস ডকুমেন্টারি হেরিটেজ-এ স্বীকৃতি দিয়েছে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল বলেই, আমরা বাংলাদেশ পেয়েছি। যদি বাংলাদেশ না পেতাম, আমাদের অবস্থা আজ রোহিঙ্গাদের চাইতেও খারাপ হতো। পাকিস্থানিরা আমাদেরকে প্রশাসনের উর্ধ্বতন অফিসার হতে দেয় নাই। বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে বলেই আমরা আজ পাকিস্থানিদের চাইতে সবদিক দিয়ে এগিয়ে আছি। সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের ইতিহাস ধারন করে, বঙ্গবন্ধু কণ্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আগামীতে বাংলাদেশকে উন্নত দেশে রূপান্তর করতে হবে।

মঙ্গলবার ভোরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যদিয়ে বঙ্গবন্ধু জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করেছেন কক্সবাজার-০৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল। তিনি ভোর ৬ টায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসন আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এসময় তিনি সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন এবং জাতির পিতা ও ’৭৫ এর ১৫ আগস্টে শহীদদের আত্মার শান্তি কামণা করে বিশেষ মোনাজাতে শরিক হন। সকাল সাড়ে ৭ টায় রামু তেচ্ছিপুল ষ্টেশনে সাধারণ মানুষের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। ৯ টায় রামু উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেয়। সাড়ে ১০ টায় সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি জেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভা ও গৃহহীনদের মাঝে নব-নির্মিত ঘরের চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। বেলা ১২ টায় সদর-রামু আসনের সাংসদ আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক) আয়োজিত বাংলাদেশের ইতিহাস সম্বলিত টেরাকোটা ও কউকের আবাসিক ফ্লাটের উন্নয়ন প্রকল্প-১ এর প্রসপেক্টাস বিক্রয়ের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠান পরে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশন রামু সেনা নিবাস আয়োজিত রক্ত সংগ্রহ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন এবং সন্ধ্যায় কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মশতবার্ষিকীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সরাসরি সম্প্রচার উপভোগ করেন। রাতে সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ট সহচর, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা একেএম মোজাম্মেল হক এর বাসভবন হক শন’এ আয়োজিত খতমে কুরআন, মিলাদ মাহফিল ও মেজবানে অংশ নেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •