মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

দেশের পেশাজীবীদের সর্ববৃহৎ ও সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ সংগঠন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির বার্ষিক নির্বাচনে কক্সবাজারের সন্তান অ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম খোকন বিপুল ভোটে নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। গত ১১-১২ মার্চ ২ দিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত নির্বাচনে নির্বাচিত ৭ জন নির্বাহী সদস্যের মধ্যে অ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম খোকন তৃতীয় সর্বোচ্চ সংখ্যক ৩২০৬ ভোট পেয়ে সমিতির নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন। জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদ মনোনীত নীল প্যানেলের জয়নাল আবেদীন-রুহুল কুদ্দুস কাজল পরিষদ থেকে তিনি সদস্য পদে নির্বাচন করে এ বিজয় লাভ করে প্যানেল ও কক্সবাজারবাসীকে মর্যাদায় অভিষিক্ত করেন।।

অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকন কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার হারবাং গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।চকরিয়ার হারবাং উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৯৪ সালে এসএসসি এবং চট্টগ্রামের সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ থেকে ১৯৯৭ সালে এইচএসসি পাশ করেন।
তিনি চট্টগ্রাম বিদ্যালয় থেকে ২০০২-২০০৩ সেশন এএলএলবি (অনার্স), এলএল.এম ডিগ্রি অর্জন করেন কৃতিত্বের সাথে।

অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকনের পিতা ছিলেন একজন সরকারী কর্মকর্তা।
অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকনের পরিবারে পাঁচ ভাই এক বোন। অন্য ৪ ভাই সকলে সরকারি চাকুরীজীবী। একমাত্র বোন একজন গৃহিণী। অসাধারণ মেধাবী ও দৃঢ় মনোবলসম্পন্ন অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকনও জীবনে বেশ ক’বার লোভনীয় সরকারি চাকুরির সুযোগ পেয়ে স্বাধীন পেশায় থেকে আর্তমানবতার সেবার কথা চিন্তা করে তিনি সেসব সরকারি চাকুরীতে যোগ দেননি।

অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকনের সহধর্মিণী নাজমা ইসলাম একজন ব্যবসায় উদ্যোক্তা।

শৈশব ও ছাত্রজীবন থেকেই অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকন পারিবারিক আবহে সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চার পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক, সংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের সাথে জড়িত হন। তাঁর সংগীত ও সাহিত্য প্রীতি দীর্ঘদিনের। কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত থাকার পাশাপাশি অসংখ্য স্বনামধন্য সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত আছেন তিনি।

বাংলাদেশ বার কাউন্সিল হতে অ্যাডভোকেটশীপ লাভের পর অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকন প্রথমে
ঢাকা আইনজীবী সমিতিতে ২০০৬ সালে আইন পেশা শুরু করেন। পরবর্তীতে কক্সবাজার আইনজীবী সমিতিতে প্রায় ৪ বছর আইন পেশায় রত ছিলেন। এরপর ২০১০ সাল থেকে আজ অব্দি নিরবিচ্ছিন্ন ও নিয়মিতভাবে সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে আইনপেশায় রত আছেন তিনি। বর্তমানে অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকন বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের আইন উপদেষ্টা। এছাড়াও বিভিন্ন কোম্পানি, আধা-সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের আইন উপদেষ্টা ও পরামর্শক হিসেবে কাজ করছেন।

তৃতীয় সর্বোচ্চ ৩২০৬ ভোট পেয়ে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর সিবিএন-কে প্রদত্ত এক প্রতিক্রিয়ায় অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকন বলেন, শৈশব লালিত স্বপ্ন ছিল আর্তমানবতার সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখবো। সে নিরিখেই আমার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘আইন বিভাগে’ ভর্তি হওয়া ও অতপর এই মহান আইন পেশায় আসা। এই পেশা ও পেশাজীবীদের সম্মান কে সর্বোচ্চে ধারণ ও তার উন্নয়নই আমার অন্যতম লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। অসহায়, গরীব, বঞ্চিত ও নিঃস্বদের বিনামূল্যে আইনী সেবা দেওয়া এবং মানবাধিকার সুরক্ষায় তিনি নিরন্তর কাজ করে যেতে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। বিশেষ করে, তরুণ আইনজীবীদের গুণগত ও পেশাগত উন্নয়নের পাশাপাশি একটি আধুনিক ও সুশৃংখল সুপ্রিম কোর্ট বার গঠনে আগামীর নেতৃত্ব কে সক্রিয়ভাবে সহযোগিতা করাই হবে আমার মূল কর্তব্য ও দায়িত্ব। তাঁকে বিপুল ভোটে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় আল্লাহতায়লার কাছে শোকরিয়া জ্ঞাপন করে অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম খোকন ভোটারদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •