বিশেষ প্রতিবেদক:
কক্সবাজার শহরের সুগন্ধা পয়েন্টের ড্রাগন মার্কেটের ভাতের দোকানদার স্বামী-স্ত্রী ও তাদের দুই পুত্রকে মারাত্মকভাবে পিটিয়েছে একদল যুবক। এতে চারজনই গুরুতর আহত হয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে এই ঘটনা ঘটে।
হামলায় আহতরা হলেন, ওই এলাকা বসবাস করা আমির হোসেন মনু, তার স্ত্রী ওই ভাতের ম্যাচের মালিক হাসিনা বেগম (৩৫), তাদের পুত্র তারেক হোসেন (২২) ও নবম শ্রেনির ছাত্র মোবারক হোসেন। আহতদের মধ্যে আমির হোসেন মনু ও তার স্ত্রী হাসিনা বেগমের হাত ভেঙে গিয়ে মারাত্মক জখম হয়েছে।

তারা অভিযোগ করেন, হাসিনার গরু কমিশনার মোরশেদ আহম্মদ বাবুর ক্ষেতের ঘাস খাওয়ার দাবি করে ওই দিন নয়জন যুবক লাঠি নিয়ে আমির হোসেন মনু, তার স্ত্রী ও পুত্রদের নির্মমভাবে পিটিয়েছেন। হামলা বেগতিক এক দেখে এক পর্যায়ে মার্কেটের সব দোকানদার জড়ো হয়ে এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। হামলাকারীদের লাঠির নিষ্ঠুর আঘাতে মারাত্মক জখম হয়। পরে অন্য দোকানদার ৯৯৯ এ কল দিলে পুলিশ গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

আহতরা জানান, হামলার সময় ওই যুবকেরা জানিয়েছিলো কমিশনার বাবুর তাদেরকে পাঠিয়েছিলো। এই ঘটনার বিচার পেতে থানায় গেলে তাদেরকে তাড়িয়ে দেয়া হয়ে বলে অভিযোগ করেন আমির হোসেন মনু ও তার স্ত্রী। এখন পর্যন্ত তারা থানায় অভিযোগ দায়ের করতে পারেনি বলে জানান।

এ ব্যাপারে কাউন্সিলর মোরশেদ আহম্মদ বাবু বলেন, জেলা প্রশাসনের নির্দেশে তিনি তার লোকজন দিয়ে পর্যটন এলাকায় এলাকা বিচরণ করা গরু আটকে অভিযান চালায়। এসময় ড্রাগন মার্কেটে বিচরণ করা দুটি গরু আটক করতে গেলে আমার লোকজনের উপর হামলা চালায় গরুর মালিক ও তার লোকজন।

ঘটনাস্থলে যাওয়া কক্সবাজার সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মাসুম হোসেন জানান, জেলা প্রশাসনের নির্দেশে কমিশনার মোরশেদ আহমদ বাবু তার লোকজন দিয়ে পর্যটন এলাকায় এলাকা বিচরণ করা গরু আটকে অভিযান চালায়। এসময় ড্রাগন মার্কেটে বিচরণ করা দুটি গরু আটক করতে গেলে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। এতে দুই পক্ষের লোকজন আহত হয়েছে। তবুও উভয় পক্ষকে উভয় নিয়ে আসতে বলেছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •