শ্যামল রুদ্র :

খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি রাজবাড়ী মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে দূর্গম জনপদের শিক্ষার্থীদের জন্য কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ছাত্রাবাসটি নির্মাণের ৯বছর পেরিয়ে গেলেও অদ্যাবধি চালু করা সম্ভব হয়নি। ফলে আসবাব সামগ্রী ও সোলার সিস্টেম নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সরকারের কয়েক কোটি টাকার সম্পদ ব্যবহার অনুপযোগী হলেও এ নিয়ে কারো যেন মাথা ব্যাথা নেই। যে কারণে দূর্গম জনপদের শিক্ষার্থীদের আবাসনসুবিধা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি। তাই দূরের কোমলমতি শিশুরা আবাসন সমস্যার কারণে উপযুক্ত শিক্ষা লাভে বঞ্চিত হচ্ছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, প্রাথমিক শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশক্রমে ২০১১ সালে প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচীর অধীনে খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি,লক্ষ্মীছড়ি ও পানছড়ি উপজেলা সদরে মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়–য়া দূর্গম এলাকার শিক্ষার্থীদের ঝড়েপড়া রোধসহ শিক্ষারমান উন্নয়নে দৃষ্টিনন্দন তিন তলা বিশিষ্ট ছাত্রাবাস নির্মাণ করেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি)। প্রতিটি ছাত্রাবাস নির্মাণে ব্যয় হয় ২ কোটি ২৪ লাখ টাকা। ছাত্রাবাসে মোট ১২টি কক্ষ। এর মধ্যে ৪০জন করে ছাত্র ও ছাত্রীর পৃথক আবাসন, কিচেন, ডাইনিং, ওয়াশ রুমের পাশাপাশি ভবনগুলো সোলার সিস্টেম এবং জেনারেটরসহ আধুনিক সুযোগ-সুবিধায় নির্মিত। শিক্ষক ও অভিভাবকরা বলেন, দীর্ঘ সময় ভবনগুলো ব্যবহার না হওয়ায় ইতোমধ্যে ফার্নিচার, সোলার সিস্টেম, জেনারেটর নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে এগুলো ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে গেছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি) ভবনগুলো নির্মাণ শেষে নিয়মানুযায়ী জেলা পরিষদকে হস্তান্তর করলেও আজ পর্যন্ত এর কোন কার্যক্রম দেখা যায়নি। যদিও এ বিষয়ে খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ ও জেলা প্রশাসনকে একাধিকবার অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি।

মানিকছড়ি উপজেলার রাজবাড়ী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ক্যজ মারমা এ প্রসঙ্গে বলেন, স্কুলের সামনে দৃষ্টিনন্দন ছাত্রাবাস খালি পড়ে থাকায় প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থী, অভিভাবকরা শিক্ষকদেরকে প্রশ্নে করছেন- কেন চালু হচ্ছে না,কবে হবে, ছেলে-মেয়েরা থাকতে পারবে কি না ?

জানতে চাইলে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বর্তমান জেলা পরিষদ সদস্য এম.এ. জব্বার বলেন, ছাত্রাবাসগুলো চালুর বিষয়ে জনবল নিয়োগ ও পরিচালনা সংক্রান্ত নিয়ম-কানুন সর্ম্পকে মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা চেয়ে একাধিকবার চিঠি দেওয়া হলেও নির্দেশনা পাওয়া যায়নি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •