মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী

সুপ্রিম কোর্ট বার থেকে ।

দেশে যখন সকল নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ, সেখানে নির্বাচনের মাধ্যমে মতামত প্রকাশের স্বচ্ছ ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বার এসোসিয়েশনে নির্বাচনে চমৎকারভাবে ফুটে উঠেছে। নেই কোন সরকারি প্রভাব, নেই কোন জাল ভোট, নেই প্রভাবশালীদের অনৈতিক প্রভাব, নেই আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোন অযাচিত তৎপরতা। সুপ্রিম কোর্ট বার নির্বাচনে প্রার্থীর যোগ্যতা, গ্রহনযোগ্যতা, নিজ ফোরামের ইমেজ উপর ভিত্তি করে দেশে পেশাজীবীদের মর্যাদাপূর্ণ ও সর্ববৃহৎ এই সংগঠনের প্রতিনিধি নির্বাচন হচ্ছে। প্রার্থীরা নিজ সংগঠনের পাশাপাশি নিজস্ব ইমেজ, এলাকা ইত্যাদিও ভোটারদের কাছে তুলে ধরছেন বিনয় ও অনুরোধের সাথে। ভোটার, দর্শনার্থীদের মুখে মুখে ছিলো সারাদেশে সকল নির্বাচন যদি এভাবে সুষ্ঠু, অবাধ, স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ও জবাবদিহিমূলকভাবে হতো। প্রার্থীদের আকুতি আর ভোটারদের হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশ, সমর্থকদের জমজমাট প্রচারণা নির্বাচনের গণতান্ত্রিক আমেজ ফুটে উঠে পুরো সুপ্রিম কোর্ট, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি অঙ্গন ও আশে পাশের এলাকায়। ভোটারদের মধ্যে কোন আতংক ও আশংকা নেই। বরং সব ভোটারদের মধ্যে উচ্ছ্বাস ও আনন্দই ছিল বেশী।

এতক্ষণ বর্ননা করছিলাম বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ১১ ও ১২ মার্চ, বুধবার ও বৃহস্পতিবার ২ দিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত সার্বিক নির্বাচনের পরিবেশ।

এই নির্বাচনে উৎসবমুখর পরিবেশে দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২০-২০২১ বর্ষের কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে বৃহস্পতিবার ১২ মার্চ বিকেল সাড়ে ৫ টায়। ৭৭৮১ জন ভোটারের মধ্যে দুইদিনে ৫৯৪০ জন ভোটার ভোট প্রদান করেছেন বলে সিবিএন-কে নিশ্চিত করেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচন পরিচালনাকারী কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার রাত ১০ টার পর ভোট গণনা শুরু হয় এবং এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ভোট গণনা চলছিল। ভোট গননার সাথে সংশ্লিষ্টরা সিবিএন-কে জানিয়েছেন নির্বাচনের পুরো ফলাফল পেতে শুক্রবার ১৩ ফেব্রুয়ারী সকাল ৮ টা পেরিয়ে যাবে।

এবারের নির্বাচনে সভাপতি-সম্পাদকসহ ১৪টি পদের মধ্যে ১ জন সভাপতি, দুই জন সহসভাপতি, ১জন সম্পাদক, ১ জন ট্রেজারার, ২ জন সহসস্পাদক ও ৭জন সদস্যের জন্য মোট ৩১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নির্বাচনে সরকার সমর্থক বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের সাদা প্যানেলের প্রার্থীরা হলেন, সভাপতি পদে এ এম আমিন উদ্দিন, সহ-সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান ও সাকিলা রওশন, সাধারণ সম্পাদক শাহ মঞ্জুরুল হক, কোষাধ্যক্ষ ড. মো. এনামুল হক, সহ-সম্পাদক মোহাম্মদ বাকির উদ্দিন ভূঁইয়া ও মোহাম্মদ ইমতিয়াজ ফারুক। সদস্য পদে মো. হুমায়ুন কবির, মো. কামরুজ্জামান, মো. সাফায়েত হোসেন (সজীব), মো. তারজেল হোসেন, মিন্টু কুমার মণ্ডল, মোহাম্মদ মশিউর রহমান ও মোহাম্মদ জগলুল কবির।

বিএনপি সমর্থক জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলে নীল প্যানেলের প্রার্থীরা হলেন, সভাপতি পদে জয়নুল আবেদীন, সহ-সভাপতি মো. আব্দুল জব্বার ভূঁইয়া ও মো. জালাল উদ্দিন, সম্পাদক মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল, কোষাধ্যক্ষ রাগীব রউফ চৌধুরী, সহ-সম্পাদক মাহমুদ হাসান ও আইয়ুব আলী আশ্রাফী। সদস্য আমিরুল ইসলাম (খোকন-কক্সবাজার), মার-ই-আম খন্দকার, মোহাম্মদ মোহাদ্দেস-উল-ইসলাম (টুটুল), মো. শফিউর রহমান, মোহাম্মদ মহসিন কবির, মোহাম্মদ শরিফ উদ্দিন (রতন) ও মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন।

এই দুই প্যানেলের বাইরে সভাপতি পদে ইউনুছ আলী আকন্দ, সহ-সম্পাদক পদে ফরহাদ উদ্দিন আহমেদ ভূঁইয়া ও সদস্য পদে তপন কুমার দাস প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এ নির্বাচন পরিচালনার জন্য সাত সদস্যের নির্বাচন উপকমিটি গঠন করা হয়েছে। জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ এফ হাসান আরিফের নেতৃত্বে কমিটির সদস্যরা হলেন, মো. জসীম উদ্দিন, শরীফ ইউ আহমেদ, মুহাম্মদ সালেহ উদ্দিন, মোহাম্মদ ইলিয়াছ ভূঁইয়া (বিএম ইলিয়াছ কচি), মো. জাহাঙ্গীর আলম ও মোহাম্মদ আশরাফ উজ জামান খান।

উল্লেখ্য, গতবার নির্বাচনে সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে সভাপতি পদসহ ছয়টি পদ পেয়েছিল আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেল। অন্যদিকে সম্পাদকসহ ৮টি পদ পেয়েছিল বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •