প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

রোহিঙ্গা পরিস্থিতি মোকাবেলায় জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচীর (ইউএনডিপি) চলমান কার্যক্রম হিসাবে টেকনাফ শহরকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করতে এবং পৌরসভার নাগরিকদের মধ্যে সঠিকভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১০ মার্চ ইউএনডিপি, টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিস, ব্র্যাক, প্রাকটিক্যাল অ্যাকশন ও টেকনাফ পৌরসভার যৌথ উদ্যোগে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু হয়েছে।

রোহিঙ্গা সংকটে উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলা সবচাইতে ঝুঁকিপূর্ণ উপজেলা, যেখানে প্রতিমাসে ১০০০০ টন (২২০০০ ঘনমিটার) বর্জ্য তৈরি হয়। কার্যকরী ব্যবস্থাপনা না থাকার কারণে বেশিরভাগ বর্জ্য উন্মুক্ত স্থানে, রাস্তার পাশে, ব্রিজের নিচে ও ড্রেনে ফেলা হয়। এর প্রভাবে স্বাস্থ্য, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থায় গুরুতর ঝুঁকিতে পড়তে পারে। তাই সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য টেকসই সমাধান অত্যাবশ্যকীয়।

ময়লা আবর্জনা সংগ্রহ পদ্ধতি, নিদিষ্ট সময়ে সঠিক জায়গায় আবর্জনা ফেলা, পচনশীল ও অপচনশীল আবর্জনা পৃথকীকরণ, বিক্রয়যোগ্য প্লাস্টিক বর্জ্য সংগ্রহ পদ্ধতি নিয়ে সুইডিশ আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (সিডা)-র অর্থায়নে ইউএনডিপি ‘টেকসই বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প’ নামে এই কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টেকনাফ উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার, মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম। এছাড়াও পৌরসভার সচিব মুহাম্মদ মুহিউদ্দিন ফয়েজী, ইউএনডিপির সৈয়দ মঞ্জুরুল হক সহ পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলরবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উক্ত অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, “বর্জ্যের উপযুক্ত ব্যবস্থাপনার অভাবে আমরা নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত হতে পারি; এর কারনে পরিবেশ দূষণ ও সৌন্দর্যহানি ঘটে। নির্দিষ্ট স্থানে বর্জ্য ফেলুন। ড্রেন, নদী, খাল ও উম্মুক্ত জলাশয়ে/স্থানে বর্জ্য ফেলবেন না। -এই পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে আমি ইউএনডিপি-কে পাশে পেয়ে সত্যিই গর্বিত ও আনন্দিত।

প্রকল্পটি বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ক যথাযথ জ্ঞান, যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা না ফেলা বিষয়ক সচেতনতা ও আচরনের ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে টেকনাফ পৌরসভার দোকানী ও গৃহকর্ত্রী/কর্তাদেরকে ময়লা-আবর্জনা ফেলার ব্যবহারবিধিসহ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান করে আসছে।

ইউএনডিপির পক্ষে সৈয়দ মঞ্জুরুল হক বলেন, “ইউএনডিপি টেকনাফ পৌরসভাকে একটি বাসযোগ্য শহরে পরিণত করতে চাই; তাই যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা না ফেলে আমাদের সহযোগিতা করুন।”

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •