এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া
কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের আশপাশে এবং চকরিয়া উপজেলার প্রতিটি গুরুত্বপুর্ণ পয়েন্টে রয়েছে একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানে প্রতিদিন পাঠগ্রহনে যাতায়াত করতে হয় হাজারো শিক্ষার্থীকে। পাশপাশি রয়েছে সর্বসাধারণের চলাচল। এই অবস্থায় চলতি গ্রীস্ম মৌসুম শুরুতে মহাসড়ক ছাড়াও উপজেলার প্রতিটি অভ্যন্তরিন সড়কে ব্যাপক যানবাহন চলাচল অব্যাহত রয়েছে। বিশেষ করে মাটি ভর্তি গাড়ি চলাচলের কারণে সড়কগুলোতে বাতাসের সঙ্গে ধোলোবালি উড়ছে। এতে বিরূপ প্রভাব পড়ছে জনসাধারণের দৈনন্দিন জীবন-যাপনের ক্ষেত্রে। বিশেষ করে স্কুল কলেজ মাদরাসাগামী শিক্ষার্থীরা ধোলাবালির কবলে পড়ে নানাধরণের রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

এই অবস্থা চলতে থাকলে আগামীতে চকরিয়া উপজেলায় চরম স্বাস্থ্যহাণির ঝুঁকি রয়েছে। তাই এখন থেকে আগামী দুইমাস দিনের বেলায় চকরিয়ায় মাটি ভর্তি গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকবে। মঙ্গলবার (১০ মার্চ) সকালে চকরিয়া উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপস্থিত সকল সদস্যদের সম্মতিক্রমে এই সিদ্বান্ত নেয়া হয়েছে। সভার সভাপতি চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নুরুদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমান এবং প্রধান অতিথি চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী সভার এই সিদ্বান্তে একমত পোষন করেন।

অনুষ্ঠিত আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় জানানো হয়েছে, কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের সিদ্বান্তের আলোকে এখন থেকে চকরিয়া উপজেলা ও পৌরসভা এলাকায় কোন ধরণের টমটম (ইবাইক) গাড়ি বেচাকেনা হবেনা। এখানে টমটম গাড়ি বিক্রির কোন শোরুম থাকবেনা। থাকলে প্রশাসন এ গুলো সিলগালা করে দেবে। এছাড়াও সভায় কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়া পৌরশহরকে যানজটমুক্ত রাখা, ছিনতাইকারীমুক্ত করা পুরো উপজেলার গ্রামীণ জনপদকে মাদক ব্যবসা ও সেবীমুক্ত করা, শিক্ষা প্রতিষ্টান কেন্দ্রীক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর টহল বাড়িয়ে ইভটিজিংয়ের শিকার থেকে ছাত্রীদের রক্ষাকল্পে ব্যবস্থা গ্রহনে আহবান জানানো হয়।

চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ ফজলুল করিম সাঈদী।

অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মকছুদুল হক ছুট্টু, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন হক জেসি, চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক ত্রাণ সম্পাদক আলহাজ নুরুল আবছার।

সভায় উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন চিরিঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ জসীম উদ্দিন, সাহারবিল ইউপি চেয়ারম্যান মহসিন বাবুল, বমুবিলছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মতলব, খুটাখালী ইউপি চেয়ারম্যান আবদুর রহমান, বরইতলী ইউপি চেয়ারম্যান জালাল আহমদ সিকদার, হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম, কাকারা ইউপি চেয়ারম্যান শওকত ওসমান, কোনাখালী ইউপি চেয়ারম্যান দিদারুল হক সিকদার, পুর্ববড় ভেওলা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম দুলাল, কৈয়ারবিল ইউপি চেয়ারম্যান মক্কী ইকবাল হোসেন, বদরখালী ইউপি চেয়ারম্যান খাইরুল বশর, ঢেমুশিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আলম জিকু, চকরিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি এম জাহেদ চৌধুরী, চকরিয়া পৌরসভার সচিব মাস-উদ মোর্শেদ, চকরিয়া দূর্ণীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মো.নোমান, মুক্তিযোদ্ধা ফরিদউদ্দিন আহমদ, চকরিয়া সিটি কলেজের অধ্যক্ষ মো.সালাহউদ্দিন সহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সদস্যরা।

একইদিন দুপুরে চকরিয়া উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। একই অনুষ্ঠানে ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রস্তুতি সভা ইউএনও শিবলী নোমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপস্থিত সকল নেতৃবৃন্দ ছাড়াও উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন। সভায় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের মধ্যে কৈয়ারবিল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ চৌধুরী, লক্ষ্যারচর ইউনিয়ন সভাপতি রেজাউল করিম সেলিম, খুটাখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জয়নাল আবেদিন, বিএমচর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম খোকন বক্তব্য রাখেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •