সিবিএন ডেস্ক:
ইউনিসেফজাতিসংঘের শিশু বিষয়ক তহবিল (ইউনিসেফ) করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সম্ভাব্য পদক্ষেপ সম্পর্কে বিভ্রান্তিমূলক তথ্যের বিরুদ্ধে সতর্ক করেছে। এ নিয়ে সংস্থাটি রবিবার (৮ মার্চ) বিবৃতি দিয়েছে।

বিবৃতিতে সংস্থার উপ-নির্বাহী পরিচালক শার্লোট পেট্রি গর্নিৎজকাকে বলেছেন, জনসাধারণের কাছে আমাদের অনুরোধ আপনারা কীভাবে নিজেকে এবং পরিবারকে সুরক্ষিত রাখতে পারবেন সে সম্পর্কে যাচাইকৃত উৎস থেকে সঠিক তথ্য সন্ধান করুন। ইউনিসেফ বা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও), সরকারি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এবং বিশ্বস্ত স্বাস্থ্যসেবা পেশাজীবীদের করোনা ভাইরাস সম্পর্কে জানার সঠিক ও নির্ভরযোগ্য উৎস।

ইউনিসেফের কর্মকর্তা একইসঙ্গে অবিশ্বস্ত বা অযাচাইকৃত উৎস থেকে পাওয়া তথ্য শেয়ার বা প্রচার থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এতে করে আতঙ্ক, ভয়ভীতি ছড়াতে পারে বা কারও নামে কলঙ্ক রটে যেতে পারে। এর ফলে লোকজন করোনা থেকে অরক্ষিত বা আরও বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় পড়তে পারে।’

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘বিশ্বজুড়ে লোকজন করোন ভাইরাস থেকে সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সাবধানতা অবলম্বনের প্রেক্ষাপটে এ মুহূর্তে প্রয়োজন হলো বৈজ্ঞানিক প্রমাণের ভিত্তিতে যথাযথ প্রস্তুতি। তবে করোনা ভাইরাস এবং এ থেকে সুরক্ষার উপায় সম্পর্কে যেসব তথ্য জানছেন ও অপরকে জানাচ্ছেন সেগুলোর মধ্যে কেবল অল্প কিছু তথ্য দরকারি বা নির্ভরযোগ্য।’

এতে বলা হয়, বিভিন্ন সামাজিক এবং মূলধারার কিছু মিডিয়ায় প্রচারিত ভুল বার্তায় বলা হয়েছে, আইসক্রিম এবং ঠান্ডা খাবার এড়িয়ে চললে করোনা সংক্রমণের সূত্রপাত রোধে সহায়ক হতে পারে। যা সম্পূর্ণ অসত্য। যারা এ ধরনের মিথ্যাচার করছেন তাদের এটা বন্ধ করা উচিত। ভুল তথ্য প্রচারের সঙ্গে আস্থার অবস্থানে থাকা ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নামে চালিয়ে দিয়ে তাতে নির্ভরযোগ্যতার রঙ দেওয়ার অপচেষ্টা বিপজ্জনক ও ভুল।

এতে আরও বলা হয়, ইউনিসেফ করোনা সম্পর্কে সঠিক তথ্য সরবরাহে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, সরকারি কর্তৃপক্ষ, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, লিংকডইন এবং টিকটক এর মতো অনলাইন অংশীদারদের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে কাজ করছে। খবর বাসস।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •