ফারুক আহমদ, উখিয়া
নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ও সোনাইছড়ি ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ ইট নষ্টসহ আড়াই লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় করা করেছে। বান্দরবান জেলা প্রশাসকের নির্দেশে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর যৌথভাবে আজ বৃহস্পতিবার এ অভিযান পরিচালনা করেছেন।
ধুমধুম ইউনিয়ন ও সোনাইছড়ি ইউনিয়ন ১০/১২টি ইটের ভাটা অবৈধভাবে পরিচালিত হয়ে আসছে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও কতৃপক্ষের কোন প্রকার কাগজপত্র নেই। অবৈধ এসব ইটের ভাটায় বনের কাঠ দিয়ে ইট পোড়ানো হচ্ছে।
খোঁজখবর নিয়ে জানা যায় বান্দরবান জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের এনডিসি মোহাম্মদ কামরুল হাসান চৌধুরীর নেতৃত্বে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিস এন্ড ডিফেন্স বাহিনীর সদস্যরা অভিযানে অংশগ্রহণ করেন। অভিযানকালে সোনাইছড়ি ম্যারেগ্যা পাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে অবস্থিত মনজুর কোম্পানির ধুমধুমস্হ আজুখাইয়া এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা মেম্বার আবুল কালামের মালিকানাধীন ইটের ভাটা ও রেজু পাড়া গ্রামের আশিক কোম্পানির মালিকানাধীন অবৈধ ইটের ভাটায় বিপুল পরিমাণ জ্বালানি কাঠ জব্দসহ জরিমানা আদায় করা হয়।
এছাড়াও পরিবেশ আইন লংঘন করায় হাজার হাজার ইট নষ্ট করা হয়েছে।
অভিযানে অংশগ্রহণ করেন বান্দরবান জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান রুবেল ও পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক একেএম মশিউর রহমান।৷ অভিযান কালে আওয়ামী লীগ নেতা মেম্বার আবুল কালামের মালিকানাধীন ইটের ভাটায় আড়াই লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। ফায়ার সার্ভিসের টিমের সদস্যরা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে পানি ছিটিয়ে অবৈধ ইটের ভাটায় তৈরিকৃত হাজার হাজার ইট নষ্ট করে দেয়।
অভিযানে অংশ নেওয়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জানান জেলা প্রশাসকের নির্দেশে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। পরিবেশ ধ্বংস করে কাগজপত্র বিহীন ইটের ভাটা স্থাপন ও বনের কাঠ পোড়ানোর অভিযোগে এদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা দায়ের করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •