সংবাদ বিজ্ঞপ্তি
সরকারীভাবে চাষীদের কাছ থেকে ন্যায্যমূল্যে লবণ ক্রয় না করে বেসরকারী লবণ মিলের মাধ্যমে লবণ মজুদ করার উদ্যোগ নেয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন কক্সবাজার লবণ মিল মালিক সমিতি। এতে করে কক্সবাজারের লবণ শিল্প মারাত্মক ভাবে ক্ষতির সম্মূখীন হতে বিবৃতি উল্লেখ করা হয়।
বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) বিকেলে কক্সবাজার লবণ মিল মালিক সমিতির এক সভায় সমিতির নেতৃবৃন্দ বর্তমানে লবণের মূল্যের নিম্নগামী হওয়ার সুযোগে, কতিপয় বড় লবণ মিল মালিক কর্তৃক লবণ ক্রয় ও মজুদ গড়ে তোলার প্রক্রিয়া শুরু হবার ঘটনায় এই উদ্বেগ প্রকাশ করেন। সভায় কক্সবাজার লবণ মিল মালিক সমিতির পক্ষে সভাপতি জনাব রইছ উদ্দিন উল্লেখ করেন আমরা গভীর উৎকন্ঠা ও উদ্বেগের সাথে পর্যবেক্ষণ করছি যে, ২/১টি বড় মিল নামধারী লবণ মিল লবণের বিশাল মজুদ গড়ে তোলার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তারা চাষীদের নিকট হতে ফড়িয়া-দালালের মাধ্যমে নামমাত্র মূল্যে লবণ ক্রয় করার পাঁয়তারা করছে।
এতে করে কতিপয় মিলের কাছে অর্থাৎ প্রাইভেট সেক্টরে লবণের বিশাল ষ্টক কুক্ষিগত হলে, ভবিষ্যতে যে কোন সময় মূল্যের উর্দ্ধগতি, কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি সহ জনদুর্ভোগের আশংকা রয়েছে, যার ফলে সরকার ও জনগণ বেকায়দায় পড়ে যাবে এবং লবণ চাষীরা পথে বসবে বলে আমরা শংকিত।
সভায় জানানো হয় আমরা আমাদের দীর্ঘদিনের দাবী অনুযায়ী, সরকার কতৃক সরাসরি চাষীদের নিকট হতে ন্যায্যমূল্যে লবণ ক্রয় করে সরকারী গুদামে একটা আপদকালীন বাফার ষ্টক গড়ে তোলার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ঠ মহলের নিকট বিশেষ করে শিল্পমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর নিকট আকুল আবেদন জানানো হয়।
এছাড়াও লবণ শিল্প ও চাষীদের সার্বিক উন্নয়নে আমাদের কিছু প্রস্তাব ও দাবী যথাযথ র্কতৃপক্ষের সদয় বিবেচনার
জন্য জানানো হয়েছে। দাবী সমূহের মধ্যে রয়েছে জনস্বাস্থের জন্য ক্ষতিকর সোডিয়াম সালফেট আমদানী নিষিদ্ধ করা হোক। যদি নেহাতই অন্য শিল্পের জন্য প্রয়োজন হয়, তাহলে তার উপর ২০০% করারোপ করা হোক। সোডিয়াম সালফেটের নামে সোডিয়াম ক্লোরাইড আমদানী বন্ধ করা হোক। কক্সবাজার কেন্দ্রীক একটা “লবণ বোর্ড” গঠন করা হোক। সরকার র্কতৃক লবণ চাষীদের নিকট হতে সরাসরি ক্রয় করে, দেশের লবণের চাহিদা ঝুঁকিমুক্ত রাখার লক্ষ্যে চলতি মৌসুমে কমপক্ষে ২লক্ষ মে:টন লবণের আপদকালীন মজুদ গড়ে তোলা হোক। এতে করে চাষীরা ন্যায্য মূল্য পাবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •