সিবিএন ডেস্ক
পেঁয়াজ রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ঘোষণার পাঁচ দিন পর এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করেছে ভারত। টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক খবরে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। ভারতের শিল্পমন্ত্রী পীযূষ গোয়াল বলেন, মার্চের ১৫ তারিখ থেকে পেঁয়াজ রফতানি শুরু করা হবে। কৃষকদের স্বার্থে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সভাপতিত্বে এক আন্তমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে পেঁয়াজ রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। দেশটির খাদ্য ও ভোক্তা অধিকার বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী রাম বিলাস পাসোয়ান এ তথ্য নিশ্চিত করে টুইটারে পোস্ট দিয়েছিলেন। ওই ঘোষণার ৫ দিনের মাথায় সোমবার (২ মার্চ) নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের নির্দেশনা জারি করা হলো। ভারতের বৈদেশিক বাণিজ্য বিভাগের মহাপরিচালক অমিত যাদবের সই করা ওই নির্দেশনায় গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হওয়া পেঁয়াজ রফতানিতে সব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কথা বলা হয়েছে। এ নির্দেশনা ১৫ মার্চ থেকে কার্যকর হবে বলে জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের সংকট ও দাম বৃদ্ধির কারণে গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি একেবারে বন্ধ করে দেয় ভারত। এরপর দেশের বাজারে পেঁয়াজ নিয়ে অস্থিতিশীলতা তৈরি হয়, যার প্রভাব এখনও কাটেনি।

এদিকে হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক হারুন উর রশীদ বলেন, ‘নির্দেশনার কপি ভারতীয় রফতানিকারকদের মাধ্যমে রাতেই আমরা হাতে পেয়েছি। তাতে পেঁয়াজের ন্যূনতম কোনও রফতানিমূল্য নির্ধারণ করা হয়নি। এতে আমরা ভারত থেকে যে দামে পেঁয়াজ কিনবো সেই দামেই এলসির মাধ্যমে দেশে আমদানি করতে পারবো। আমদানিকারকরা উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রে আইপির জন্য আবেদন করেছেন। আগামীকাল বা পরশু সেসব অনুমোদন পেতে পারি। অনুমোদন পেলে ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করে পেঁয়াজের এলসি খোলা হবে। এর ফলে ১৫ মার্চ থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে দেশে পেঁয়াজ আমদানি হতে পারে। এছাড়া আসন্ন রমজানে দেশের বাজারে পেঁয়াজের বাড়তি চাহিদাকে ঘিরে এলসিও খোলা হবে।’ ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি শুরু হলে দেশের বাজারে এর দাম কমে আসবে বলেও তিনি জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •