বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে ১৬ নম্বর চকবাজার ওয়ার্ড থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন চকবাজার এলাকার আলোচিত ‘সন্ত্রাসী’ নুর মোস্তফা টিনু। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হিসেবে টিনু প্রার্থী হয়েছেন।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) হাতে অস্ত্রসহ গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আটক থাকা নুর মোস্তফা টিনুর পক্ষে তার স্ত্রী মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) মনোনয়ন ফরম দাখিলের শেষ দিন নুর মোস্তফা টিনুর স্ত্রী মনোনয়ন ফরম জমা দেন।

নুর মোস্তফা টিনু নিজেকে চকবাজার ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি পরিচয় দিতেন। সম্প্রতি তিনি নিজেকে মহানগর যুবলীগ নেতা হিসেবে পরিচয় দিয়ে আসছিলেন।

গত বছরের ২২ সেপ্টেম্বর রাতে নগরের চকবাজার এলাকা থেকে নুর মোস্তফা টিনুকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব-৭) একটি দল। এরপর তার বাসা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তল্লাশি চালিয়ে একটি বিদেশি শর্টগান ও ৬৭ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

নুর মোস্তফা টিনুর বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করার পর তাকে পাঁচলাইশ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে কারাগারে রয়েছেন নুর মোস্তফা টিনু।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ২০০৩ সালের দিকে গোলপাহাড় মোড় থেকে একটি অত্যাধুনিক চাইনিজ একে-২২ রাইফেল, ১টি ম্যাগাজিনসহ টিনুকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। এ ছাড়া ২০১২ সালে চাঁন্দগাও থানায় তার বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে মামলা হয়।

২০১৮ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি কাতালগঞ্জে এক ব্যবসায়ীর ৫ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের মামলায় পাঁচলাইশ থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন টিনুর ছোট ভাই নুরুল আলম শিপু। আদালতে শিপু টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় অপরাধ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিও দেন। শিপুর মুক্তির দাবিতে তখন টিনুর লোকজন থানা ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেন।

একই বছরের ১২ অক্টোবর মুরাদপুরে ব্যাংক থেকে ৬ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনার সঙ্গেও টিনুর বাহিনী জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া চাঁদার দাবিতে কাপাসগোলা সড়কে তেলিপট্টি মোড়ে আলিফ প্লাজায় এ ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট চালায় টিনু বাহিনী। এ ঘটনায়ও টিনুকে আসামি করে মামলা করেন মার্কেটের মালিক।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •