শাহেদ মিজান,  সিবিএন:

র‌্যাব-১৫ এর সিও উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ বলেছেন, কক্সবাজার ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় জমি অধিগ্রহণের ঘুষ গ্রহণের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে এ্যাকশনের নেমেছে র‌্যাব। ঘুষ গ্রহণের সাথে জড়িত কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং দালালসহ কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। ঘুষ গ্রহণকারী যত বড় রাঘব-বোয়াল হোক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে র‌্যাব।

গত বুধবার র‌্যাবের অভিযানে ঘুষের ৯৪ লাখ  টাকাসহ এক সার্ভেয়ার আটকের  ঘটনায় অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

আজিম আহমেদ বলেন, র‌্যাব মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর পাশাপাশি সম্প্রতি সারাদেশে শুদ্ধি অভিযানের অংশ হিসেবে বুধবার বিকেল থেকে সন্ধ্যার পর পর্যন্ত কক্সবাজার শহরের বাহারছড়া ও তারাবনিয়ারছড়া এলাকায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের তিন সার্ভেয়ারের বাসায় অভিযান চালায়। শুরুতে সার্ভেয়ার ফরিদ উদ্দিনের বাসায় অভিযান চালিয়ে সার্ভেয়ার ওয়াসিম খানকে আটক করা হয়। তার দেয়া তথ্যে তারই ব্যাগ থেকে ৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকা, ফরিদ উদ্দিনের শয়ন কক্ষের ফক্স হুলের রুম থেকে ৬১ লাখ ২০ হাজার ৫৫০ টাকা, আরেক সার্ভেয়ার মো. ফেরদৌস খানের তারাবনিয়ারছরার বাসা থেকে ২৬ লাখ ৮৪ হাজার ৬০০ টাকা জব্দ করা হয়। কিন্তু অভিযানের খবর পেয়ে তারা আগেই পালিয়ে যান।

তিনি আরও বলেন, অভিযানে বিভিন্ন ব্যাংকের ১৫ লাখ টাকার চেক, লেনদেন রেজিস্ট্রার ও হিসাব বিবরণীসহ গুরুত্বপূর্ণ নানা কাগজপত্র জব্দ করা হয়। সেখানে সার্ভেয়ার, কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের নাম এবং লেনদেন হিসাব বিবরণী রয়েছে। নাম এসেছে অনেক সাংবাদিক এবং রাজনৈতিক নেতারও। এদের মধ্যে শীর্ষ হিসেবে প্রায় অর্ধশত দালালের নাম উঠে এসেছে। তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করা যাচ্ছে না। তবে চিহ্নিত এসব দালালদের ধরতে অভিযান চলবে।

র‌্যাব-১৫ এর সিও উইং কমান্ডার আজিম আহমেদ বলেন, ঘুষের উদ্ধারের ঘটনায় আটক একজনসহ তিন সার্ভেয়ারের বিরুদ্ধ মামলার প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়। আমাদের পক্ষ থেকে মামলাটি করা হবে। একই সাথে ভূমি অধিগ্রহণের ঘুষ লেনদেনের সাথে জড়িত কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং দালালদের অভিযান জোরদার থাকবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •