ইমাম খাইর, সিবিএন

১৫ আনসার ব্যাটালিয়নের বার্ষিক ফায়ারিং অনুশীলন প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে।
মঙ্গলবার সকালে কক্সবাজার পুলিশ লাইন ফায়ারিং রেঞ্জে দুই দিনব্যাপী এই অনুশীলনের উদ্বোধনে প্রধান অতিথি ছিলেন শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদার।
তিনি বলেন, ১৯৯২ সাল থেকে রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরের শান্তি শৃংখলা জননিরাপত্তা অপারেশনাল কাজে অতীতের সফল ধারাবাহিকতায় বর্তমানে ১৫ আনসার ব্যাটালিয়ন দায়িত্ব পালন করছে।
সরকার যৌক্তিকভাবে এই বাহিনীর আধুনিক অস্ত্র সরন্জামসহ সংস্কারের হাত দিয়েছে।
দশলাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর কঠিন জননিরাপত্তা শৃংখলা রক্ষায় ব্যাটালিয়ন আনসারগণ আমাদের সবচেয়ে পরীক্ষিত বাহিনী।
এই সাফল্যের কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনা ১৫ আনসার ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক আজিম উদ্দিনসহ ছয় সদস্যকে পিভিএম ও পিএএম পদক দেন।
পদকপ্রাপ্ত ৬ জনকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধান অতিথি।
ব্যাটালিয়ন সদস্যদের অপারেশনাল দক্ষতার জন্যে কুতুপালং ও নয়াপাডা শরনার্থী ব্যাটালিয়ন কোম্পানী সদরে পিকআপ মোটরসাইকেল সরবরাহের ঘোষণা দেন শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদার।
বিশেষ অতিথি ছিলেন -পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন ও নবাগত জেলা কমান্ডেন্ট আনসার ভিডিপি মোঃ সাইফউদ্দিন।
ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক এএস এম আজিম উদ্দিন পিভিএমের সভাপতিত্বে ফায়ারিং অনুশীলনে কক্সবাজার জেলায় বিভিন্ন থানা ও রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পসমূহে শান্তি শৃংখলা এবং জননিরাপত্তা অপারেশনে নিয়োজিত ব্যাটালিয়ন আনসারগণ অংশগ্রহণ করে।
দুই দিনব্যাপী বার্ষিক ফায়ারিং কর্মসুচিতে চৌকষ ফায়ারিং শেষে সফল ব্যাটালিয়ন সদস্যদের পুরস্কার প্রদান করা হবে।
ফায়ারিং অনুশীলনে উপস্থিত ছিলেন -পুলিশ লাইনের আরআই আবদুস সালাম, ১৫ ব্যাটালিয়ন কোম্পানী কমান্ডার শাব্বির হোসেন, অরুন পাল, বিইচএম নুরুল ইসলাম।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •