রামুর ধোয়াপালং এ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমি দখলের পাঁয়তারা চালাচ্ছে স্থানীয় মৃত আবদুর রহমানের পুত্র নুরুল আমিন গং -শিরোনামে গত ১০/০২/২০২০ইং তারিখ কক্সবাজার নিউজ ডট কম অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত শীর্ষক সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে । সংবাদটি সস্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। কুচক্রীমহল উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে আমার বিরুদ্ধে উক্ত সংবাদ টি ছাপিয়েছে আমি উক্ত মিথ্যা ও বানোয়াট উদ্দেশ্য প্রনোদিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি ।

প্রকৃত ঘটনা হল, রামুর ধোয়া পালং মৌজার ৪৮,১৭৫,১৭৬, ৩১৬, ,৩৬০, ৩৬১/১ ও ৩১৯ আর এস খতিয়ান মূলে রায়তী মালিক নছরত আলীর ওয়ারিশ মোঃ বকসু গং হইতে আর এস ৪৮,১৭৫,১৭৬, ৩১৬, ,৩৬০, ৩৬১/১ ও ৩১৯ নং খতিয়ান মূলে ১৯৮০ ইং সনে আমার পিতা আবদুর রহমান সওদাগর গং খরিদসূত্রে প্রাপ্ত ও দখল প্রাপ্ত প্রায় ৭.২১ একর জমি ৪০ বছর পর্যন্ত অদ্যাবদি শান্তিপূর্ণ ভোগদখল করে আসতেছিলাম, বর্তমানে ও শান্তিপূর্ণ ভোগদখলে আছি। আর এস ৩১৯ নং খতিয়ানের অবশিষ্ট জমিগুলি মোঃ বকসুর বসতবাড়ী , পুকুর ও চাষাবাদের জমি শান্তিপূর্ণ ভোগ দখলে আছে । জমিগুলির পূর্বে ভ’ল বি এস সৃজন হওযার কারনে ২০০৬ইং সনে বিজ্ঞ রামু সহকারী জর্জ আদালতে মৌঃ মোহাম্মদ উল্লাহ গং দের বিবাদী করে মামলা নং অপর ১৯/২০০৬ইং বি এস সংশোধণী মামলা দায়ের করা হয় । বিবাদী মৌঃ মোহাম্মদ উল্লাহ গং আদালতে কোন সঠিক কাগজ পত্র দাখিল করতে না পেরে মামলায় হারিয়ে যাওয়ার ভয়ে ২০১০ ইং সনে গোয়ালিয়ার শাহেদুজ্জামান বাহাদুর প্রকাশ ভ’মিদস্যু বাহাদুর গং কে মিথ্যা ভ’য়া ফেরবী কাগজ পত্রের মাধ্যমে হস্তান্তর করে মামলা কনটেস্ট করা থেকে বিরত থাকে। মামলা চলাকালীন সময় ভ’মিদস্যু শাহেদুজ্জামান বাহাদুর গং দখলবিহীন উক্ত জায়গার মিথ্যা ভ’য়া ফেরবী কাগজ নিয়ে ভ’য়া বি এস সৃজন করে তা আদালতে দাখিল করে । আমরা বাদীপক্ষের মধ্যে ভ’ল বুঝাবুঝির কারনে বিবাদী অতি চালাক শাহেদুজ্জামান বাহাদুর সুযোগ হিসাবে নেয় । বিজ্ঞ রামু সহকারী জর্জ আদালতের ৩১/১০/২০১৯ ই্ং রায় ও ০৫/১১/২০১৯ই্ং তারিখের ডিগ্রির মাধ্যমে অপর ১৯/২০০৬ই্্ং মামলাটি খারিজ ও উক্ত রায হতে উদ্ভ’ত ফৌজদারি ৪৬৫,৪৬৮,২০৫ ধারামতে প্রসিডিং জারির আদেশের বিরুদ্ধে আমরা গত ১৬/০১/২০২০ইং তারিখ বিজ্ঞ জেলা জর্জ আদালত কক্সবাজার অপর আপীল মামলা নং- ০৬/২০২০ইং দায়ের করি । শুনানী শেষে বিজ্ঞ জেলা জর্জ আদালত কক্সবাজার আদেশ নং -১ তারিখ ১৬/০১/২০২০ ইং নি¤œ আদালতের অপর ১৯/২০০৬ই্্ং নং মামলার ৩১/১০/২০১৯ ই্ং রায় ও ০৫/১১/২০১৯ই্ং তারিখের ডিগ্রির আপিল মামলাটি গ্রহন করে ও উক্ত রায হতে উদ্ভ’ত ফৌজদারি ৪৬৫,৪৬৮,২০৫ ধারামতে প্রসিডিং জারির আদেশের কার্যকারিতা স্থগিত করেন এবং বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে কক্সবাজার সদর ( আমলী আদালত ) উক্ত আদেশের কার্যকারিতা স্থগিত করার জন্য বিজ্ঞ জেলা জর্জ আদালতের আদেশ নং -১ তারিখ ১৬/০১/২০২০ ইং আদেশের কপি সহ গত ২২/০১/২০২০ ইং তারিখ ৭৭ নং স্বারকের পত্রের মাধ্যমে প্রেরণ করেন । মিথ্যা, ভূয়া, ফেরবী সৃজনকৃত কাগজ পত্র নিয়ে বিজ্ঞ জেলা জর্জ আদালত কক্সবাজার এ মামলা মোকাবিলার ভয়ে ও এবং তার কোনদিন উক্ত জমিতে দখল দারিত্ব না থাকায় মামলায় আলামত হিসাবে দাখিল করার জন্য প্রথমে ভ’মিদস্যু শাহেদুজ্জামান বাহাদুরের সন্ত্রাসী দিয়ে দখল নিতে না পেরে পরে হিমছড়ি পুলিশ ফাঁড়িতে মিথ্যা অভিযোগ করে জমি জবরদখল নেওযার চেষ্টা চালায় । উক্ত জমির বি এস সংশোধনীর জন্য উচ্চ আদালতে মামলা ও ১৯৮০ইং সনের পূর্বে নছরত আলী ও তার ওয়ারিশগণ এবং ১৯৮০ ইং সনের মে মাস হতে অদ্যাবদি নুরুল আমিন গং এর দখল দারিত্ব এমনকি বর্তমান মৌসুমের চাষাবাদও আমাদের অনুকুলে থাকায় সংশ্লিষ্ট তদন্ত অফিসারের নিকট এলাকার সকল লোকজন স্বাক্ষী দিলে দখল নিতে না পেরে বিগত ১০/০২/২০২০ইং তারিখ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রটে আদালত বরাবর উক্ত শাহেদুজ্জামান গং মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে ২২০/২০২০ইং এম আর মামলার মাধ্যমে আমাদের বর্গাচাষারা বর্তমানে চাষাবাদকৃত জমিতে উভয় পক্ষকে প্রবেশের বারিত আদেশ দেন । এবং রামু এসিষ্টেন্ট কমিশনার ভ’মি মহোদয় কে সরেজমিনে তদন্ত করে রিপোর্ট প্রদানের আদেশ দেন । ফলে শাহেদুজ্জামান গং উক্ত জমিতে কোনদিন প্রবেশ করেনাই হিসাবে কোন অসুবিধা না হলেও আমাদের বর্গাচাষারা বর্তমানে উক্ত চাষাবাদকৃত জমিতে পানি দিতে ও অন্যান্য কৃষিকাজ করতে না পারলে আমাদের ও চাষাদের অপূরণীয় ক্ষতি হচ্ছে । এ ব্যাপারে দিনে এনে দিনে খাওয়া ও খেটে খাওয়া চাষী গুলো গায়ের ঘাম পায়ে ফেলে ছেলেমেয়েদের না খাওয়ায়ে না পরায়ে বিন্দু বিন্দু করে জমানো অর্থ দিয়ে চাষ করা জমিতে পানি দিতে না পেরে ধানের চারা গুলো মরে গেলে সেই খেটে খাওয়া কৃষকগুলোর সারা বছরের জন্য জমানো খোরাক না পাওয়ার আশংকায় আছেন ।

ইহ জীবনে কোনদিন কোন সময় উক্ত জমির দখল শাহেদুজ্জামান বাহাদুর গং এর ছিলনা এবং বর্তমানে ও নাই । এলাকার সকল মানুষ স্বাক্ষী আছে। শাহেদুজ্জামান বাহাদুর মিথ্যা , বানোয়াট ফেরবী উদ্দেশ্যপ্রনোদিত সংবাদ ছাপিয়ে আমার ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে অন্যদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে । আমার পিতা মরহুম আবদুর রহমান সওদাগর খুনিয়া পালং ইউনিয়নের সাবেক জনপ্রিয় চেয়ারম্যান ছিলেন। আমার মরহুম পিতা, আমার ও আমার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সামাজিক সুনাম সহ্য করতে না পেরে কুচক্রী মহলের হুতা ভ’মিদস্যু শাহেদুজ্জামান বাহাদুর মিথ্যা সংবাদ ছাপিয়ে আমার মানহানি করার চেষ্টা করতেছে। আমি ও আমার পরিবার উক্ত মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি । উক্ত ১০/০২/২০২০ ইং তারিখে কক্সবাজার নিউজ ডট কম পত্রিকায় আমার নামে প্রকাশিত সংবাদে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সকলকে অনুরুধ জানাচ্ছি । খুব অল্প সময়ের মধ্যে অবৈধ ভাবে টাকার পাহাড় গড়ার মালিক রামুর গোয়ালিয়া পালং এর মরহুম ওসমান গণির পূত্র শাহেদুজ্জামান বাহাদুর বিভিন্ন জনের কাছ থেকে অল্প মূল্যে দখল ছাড়া ভ’য়া ফেরবী মিথ্যা ভ’য়া কাগজ কিনে মালিক বনে এলাকার গরীব অসহায় মানুষদের মিথ্যা মামলা ও ভাড়াটে সন্ত্রাসী নিয়ে ভ’মিদস্যু ও সন্ত্রাসী শাহেদুজ্জামান বাহাদুর ঘরবাড়ী ও চাষাবাদের জমি জবর দখল করার ষড়যন্ত্র চালায়। এলাকার গরীব অসহায় কৃষক মানুষদের ভ’মিদস্যু ও সন্ত্রাসী শাহেদুজ্জামান বাহাদুরের কাছ থেকে বাচাতে এলাকাবাসী প্রশাষনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে ।

প্রতিবাদকারী

নুরুল আমিন

ধোয়াপালং, রামু, কক্সবাজার ।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •