এম.মনছুর আলম, চকরিয়া
চকরিয়ায় চিংড়ীঘেরের জায়গা বিরোধ ও পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলায় একই পরিবারের তিনসহ পাঁচ জনকে ধারালো অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে ও বেদড়ক মারধর করে আহত করা হয়েছে। স্থানীরা এগিয়ে এসে ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করা হয়।
সোমবার (১৭ফেব্রুয়ারি) দুপুরের দিকে উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ছায়রাখালী এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। ঘটনায় আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নস্থ ছায়রাখালী এলাকায় মৃত হাজী ফকির মোহাম্মদের ছেলে সাবেক মেম্বার শামসুল আলমের নামীয় খতিয়ানভূক্ত বিভিন্ন শ্রেণীর জায়গা রয়েছে। তৎমধ্যে বেশকিছু জায়গা চিংড়িঘের ও নাল শ্রেণীর জমি হয়। ওই জমি জবর-দখলে নিতে স্থানীয় সাবেক মেম্বার কামাল উদ্দিনসহ এক শ্রেণীর দখলবাজ চক্র সোমবার দুপুরে জবর-দখল করতে গেলে এতে বাঁধা দেন জায়গার মালিক শামসুল আলম মেম্বার ও তার ছেলে হেলাল উদ্দিন। এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি তর্কে জড়িয়ে যায়। একপর্যায়ে মৃত ফজল করিমের ছেলে জামাল উদ্দিন, জালাল আহমের ছেলে সাবেক মেম্বার কামাল উদ্দিন ও মোকতার আহমদের নেতৃত্বে ১০-১২জন সন্ত্রাসী দেশীয় তৈরি ধারালে অস্ত্রনিয়ে অতর্কিত ভাবে বয়োবৃদ্ধ শামসুল আলম মেম্বার ও তার ছেলে হেলাল উদ্দিনের উপর হামলা চালিয়ে মারধর করে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। এতে হামলায় আহতদের উদ্ধার করতে গেলে প্রতিপক্ষের লোকজন আরো তিনজনকে বেদড়ক মারধর করে আহত করেন। স্থানীরা ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় আক্রান্ত পরিবারের সদস্যরা থানায় মামলার প্রস্তুতি নিয়েছে বলে জানায়।
চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, হামলার ঘটনার বিষয়ে থানায় এখনো পর্যন্ত কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •