সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :

রাজনীতিকে দুর্বৃত্তায়নমুক্ত করতে এই সময়ে জাতীয় বীর কাজী আরেফ আহমেদ এর বেশী প্রয়োজন ছিল বলে মন্তব্য করেছেন জাসদ নেতৃবৃন্দরা।

রবিবার (১৬ ফেব্রুয়ারী) বিকালে ৪টায় জেলা জাসদ কার্যালয়ে জাসদ সভাপতি নইমুল হক চৌধুরী টুটুল এর সভাপতিত্বে জাতীয় বীর কাজী আরেফ আহমেদ সহ ৫ জাসদ নেতার ২১তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাসদ আয়োজিত স্মরণ সভায় বক্তরা বলেন, একটি ভয়ঙ্কর নৃশংস হত্যাকা-ের মধ্য দিয়ে আমরা কাজী আরেফ আহমেদকে হারিয়ে ফেলি। খুনিরা তাকে সামনে থেকে গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করেছে। কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার কালিদাসপুরে ১৯৯৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি এক জনসভায় তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

তার হত্যাকারীদের বিচার হয়েছে। যদিও কোনো হত্যাই সংগঠিত হয়না পরিকল্পনাকারী ছাড়া। এখনো সেই হত্যার কোনো পরিকল্পনাকারীকে ধরা হয়নি। এই হত্যার পরিকল্পনাকারীদেরও বিচার করতে হবে।

মুক্তিযুদ্ধকালীন মুজিব বাহিনীর অন্যতম নেতা কাজী আরেফ আহমেদ স্বাধীনতার পর জাসদ গঠনের অন্যতম উদ্যোক্তা ছিলেন। পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর জিয়াউর রহমানের আমলে আগের সকল বৈরিতা ভুলে আওয়ামীলীগ-জাসদ ঐক্য প্রতিষ্ঠায় কাজী আরেফের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। ৯০ এর দশকে শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি গঠিত হলে তাতে তিনি সক্রিয় ছিলেন।

বক্তারা আরো বলেন- কাজী আরেফ আহমেদকে আমরা যথাযথ মূল্যায়ন করিনি। তাকে সঠিক মূল্যায়ন করাটা জরুরি। কাজী আরেফ আহমেদ আমাদের বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলন ও স্বাধীনতা সংগ্রামের এক অবিস্মরণীয় নাম। যদিও এ নামটি আজকের প্রজন্মের কাছে অচেনা এবং ব্যক্তিটিকে আজ অনেকেই চেনেন না। তাই তার কথা তরুণ প্রজন্মকে জানাতে উদ্যোগ নিতে হবে।

বর্তমানে রাজনীতিতে যে দুর্বৃত্তায়ন চলছে, এই দুর্বৃত্তায়ন থেকে রাজনীতিকে মুক্ত করতে এই সময়ে কাজী আরেফ আহমদের বেশী প্রয়োজন ছিল। যেহেতু খুনি-দুর্বৃত্তরা আমাদের আশা-আকাংখার বাতিঘর কাজী আরেফ আহমেদকে হত্যা করে সবশেষ করে দিয়েছে। তাই কাজী আরেফের মুক্তবুদ্ধির চিন্তা-চেতনা, সমাজতান্ত্রিক আদর্শকে আমাদের মেধায় মননে ধারণ করে, বাংলাদেশে সমাজতন্ত্রের বিকাশ ও সু-শাসনের আন্দোলনকে এগিয়ে নিতে হবে।

কাজী আরেফ আহমের স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন- জাসদ কক্সবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবুল কালাম আজাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ হোসাইন মাসু, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট রফিক উদ্দিন চৌধুরী, সদর উপজেলা জাসদের সভাপতি লস্কর আলী, জেলা জাসদ দপ্তর সম্পাদক ও জাতীয় যুবজোট কক্সবাজার জেলা সভাপতি অজিত কুমার দাশ হিমু। এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জেলা জাসদ জনসংযোগ সম্পাদক মোঃ আবু তৈয়ব, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আবদুর রশিদ, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আবদুল জব্বার, পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক প্রদীপ দাশ, জাসদ নেতা মোঃ হাসান, জাতীয় যুবজোট সহ-সভাপতি মোঃ জাকের হোসেন, মোঃ আজম, আবদুর রহিম, আবদু সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আমান উল্লাহ আমান, অর্থ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম খোকন, দপ্তর সম্পাদক মোঃ নাছির উদ্দিন, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক বোরহান বিন কাদের, ক্রীড়া সম্পাদক আকবর বাদশা পুতুল, মোঃ করিম, জহির উদ্দিন, মোঃ শাকিল, আবদুল মালেক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কক্সবাজার জেলা সভাপতি আবদুর রহমান প্রমুখ।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •