প্রেসবিজ্ঞপ্তি
কক্সবাজারে শনিবার আনন্দ উচ্ছ্বাসে পালিত হয়েছে ডাচ বাংলা ব্যাংক-প্রথম আলো ফিজিক্স অলিম্পিয়াড- ২০২০। সকাল নয়টায় কক্সবাজার সরকারি কলেজ মাঠে বেলুন উড়িয়ে অলিম্পিয়াডের উদ্বোধন করেন একই কলেজের অধ্যক্ষ এ কে এম ফজলুল করিম চৌধুরী। এর আগে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়।

সকাল ছয়টা থেকে ভোরের কোয়শা ভেদ করে সুদুর মহেশখালী, চকরিয়া, ঈদগাঁও, রামু, উখিয়াসহ বিভিন্ন এলাকার ২৩টি স্কুল-কলেজের কয়েকশ শিক্ষার্থী কলেজ ক্যাম্পাসে হাজির হন। সঙ্গে ছিল তাঁদের অভিভাবকও।

ষষ্ট থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা তিনটি ক্যাটাগরিতে ভাগ হয়ে এই অলিম্পিয়াডে অংশ নেন।

উদ্বোধনী অনুষ্টানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন, প্রথম আলো কক্সবাজার আঞ্চলিক অফিস প্রধান সাংবাদিক আব্দুল কুদ্দুস রানা। তিনি শিক্ষার্থীদের মেধার বিকাশে গণিত উৎসব, ভাষা উৎসব, বিতর্ক উৎসব, বিজ্ঞান মেলাসহ প্রথম আলো নানা কর্মসূচি বাস্তবায়নের পেছনে লক্ষ্য-উদ্দেশ্য তুলে ধরেন।

অনুষ্টানের প্রধান অতিথি ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ একেএম ফজলুল করিম চৌধুরী। তিনি শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান শিক্ষার প্রতি অধিক মনোযোগী হওয়ার তাগিদ দিয়ে বলেন, কক্সবাজারে বিজ্ঞান শিক্ষার্থী ক্রমান্বয়ে কমে যাচ্ছে শিক্ষা-প্রতিস্টানে বিরাজমান বিভিন্ন সমস্যার কারণে। এতে মেধার বিকাশ ঘটছেনা। এব্যাপারে সবাইকে ভাবতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন, ডাচ বাংলা ব্যাংক কক্সবাজার শাখার ব্যবস্থাপক ওয়াহেদ মো. মুরাদুল করিম, কক্সবাজার সরকারি কলেজের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মফিদুল আলম, কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নাছির উদ্দিন, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক বিধান পাল, মাসিক বিজ্ঞানচিন্তার নির্বাহী সম্পাদক আবুল বাশার। অনুষ্টান সঞ্চালনা করেন কক্সবাজার জেলা বন্ধুসভার সাবেক সভাপতি ইব্রাহিম খলিল।

সাড়ে ৯টায় শুরু হয় লিখিত ও বহুনির্বাচনী পরীক্ষা। এরপর চলে জমজমাট প্রশ্নোত্তর পর্ব। শিক্ষার্থীদের প্রশ্নের জবাব দেন শিক্ষক ও গবেষকেরা। সেরা প্রশ্নকারীদের পুরস্কার হিসাবে দেওয়া হয় মাসিক বিজ্ঞানচিন্তা ও কিশোরআলো ।

শেষে তিনটি ক্যাটাগরিতে ৪৯ জন খুদে পদার্থবিদকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। ছেলেদের মধ্যে সেরা হয়েছে চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠের ছাত্র মো. এমরান হোসেন এবং মেয়েদের মধ্যে সেরা হয়েছেন চকরিয়া গ্রামার স্কুলের ছাত্রী সুমাইয়া ছিদ্দিকা সুমি। বিজয়ীর হাতে সনদ, মেডেল ও ক্রেস্ট তুলে দেন অতিথিরা। বিজয়ীরা আগামী ২৮ ও ২৯ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় অনুষ্টেয় জাতীয় ফিজিক্স অলিম্পিয়াডে অংশ নেবেন।

আয়োজকেরা জানায়, জাতীয় পর্বে বিজয়ীদের নিয়ে আয়োজন করা হবে প্রস্তুতি ক্যাম্প। এ বছর সর্বোচ্চ আটজন অংশগ্রহণকারী সুযোগ পাবে তাইওয়ানে অনুষ্ঠিত ২১তম ফিজিক্স অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণ করার। এ ছাড়া পাঁচজন করে সুযোগ পাবে লিথুনিয়াতে অনুষ্ঠেয় ৫১তম আন্তর্জাতিক ফিজিকস অলিম্পিয়াড এবং রোমানিয়ায় অনুষ্ঠেয় ইউরোপিয়ান অলিম্পিয়াডে অংশ নেওয়ার।

বিজয়ী ৪৯ খুদে পদার্থবিদেরা হলো :

# ক্যাটাগরি এ- ১০ জন :

চকরিয়ার অনুশীলন একাডেমির ইব্রাহিম জিদান, সাবরিনা হক তারিন, সাদ আজমাইন, শাহরিয়ার ইমরান, মো. ওমর ফারুক, কাফেস মো. সাইমুল, ফারহান মাহমুদ, ঈদগাহ আদর্শ শিক্ষা নিকেতনের আফিয়া আনজুম আফরা, চকরিয়া গ্রামার স্কুলের মুনতাসীর করিম, কক্সবাজার সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের সাজ্জাদুল ইসলাম ফাহিম।

# ক্যাটেগরি বি- ২৪ জন :

চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠের মো. এমরান হোসাইন, দীপ্ত সুশীল শান্ত, মো. রাফিজুল ইসলাম, এস এম আলিফ ইয়াসির, শাহরিকা মুমতারিন, হাবিবুল বাশার, ঈদগাহ আদর্শ শিক্ষা নিকেতনের নুসাইব মাহমুদ আদিল, আরফাতুল ইসলাম, মোহাম্মদ ওয়ালিদ, তানভীর হুদা অভি, মো. ইব্রাহিম, নওশাদ মোক্তার, চকরিয়া গ্রামার স্কুলের সুমাইয়া সিদ্দিকা সুমি, আলাওল চিশতী জিলানী, আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ, মোহাম্মদ শাখাওয়াত, হামীম মোশাররফ, আব্দুল্লাহ আল ফাহিম, মো. সোহাইল, চকরিয়ার অনুশীলন একাডেমির আতাউল্লাহ বিন কাশেম, কক্সবাজার সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের বিক্রম আদিত্য, মেজবা উদ্দীন সাইফ, কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রীতিমা পাল, কক্সবাজার মডেল হাইস্কুলের সৃজন কান্তি রুদ্র।

# ক্যাটেগরি সি- ১৫ জন :

ঈদগাহ আদর্শ শিক্ষা নিকেতনের ফাহিম মোরশেদ সাউদ, অংকন কান্তি দে, সোহাইল মোহাম্মদ, তারেক হোসাইন জনি, আশরাফুল ইসলাম অর্ণব, শফিকুল ইসলাম, আসাদ বেলাল, মুসতাইনুল ইসলাম, মো. ইসমাইল, তাফিজুর রহমান, কিশলয় আদর্শ শিক্ষা নিকেতনের রাফসান জিয়া, মফিদুল ইসলাম সাইম, কক্সবাজার সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের আনাস বিন আলম আলভী, কক্সবাজার সিটি কলেজের চয়ন বড়ুয়া, তাজনুসা শারমিন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •