বার্তা পরিবেশক:

এনজিও সংস্থা ব্র্যাক কক্সবাজার কার্যালয়ে কর্মরত রোহিঙ্গা নারী ইয়াসমিন আকতার প্রকাশ শফিকা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সে নানাভাবে লোকজনকে হয়রানি করছে বলে জানা গেছে।

অভিযোগে গ জানা যায়, মায়ানমার সেনাবাহিনী দ্বারা নিপীড়িত হয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে ইয়াসমিন আকতার প্রকাশ শফিকা একজন। তিনি কক্সবাজার সদরের ৮ নং পিএম খালী ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের ঘাটকুলিয়াপাড়ার আব্দুস সালাম নামের এক ব্যাক্তিকে তথ্য পরিচয় গোপন করে পিতা সাজিয়ে ২০১৫ সালে তৎকালীন ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান ও চেয়ারম্যান শহিদুল্লাহ বি কম সাক্ষরিত জন্মনিবনন্ধন করে নিবন্ধন স্লিপ নং ৪৮৩০৯০৩৪ ভোটার এলাকার নাম্বার ১২২৫ ভোটার হওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

অন্যদিকে স্থানীয়রা আবেদন করে চাকরি না ফেলেও সে এতসব জাল জালিয়াতি করে সহজেই ব্যাকের মতো গুরুত্বপূর্ণ এনজিও সংস্থায় সিনিয়র ক্লিনার পদে চাকরি করছে এবং ঐ অফিসে কর্মরত স্থানীয় অনন্য কর্মকর্তাদের সাথে নানা অশোভন আচরণ করে আসছে। কথায় কথায় স্থানীয়দের চাকরি খাওয়ার ভয় দেখায়। তার অপকর্মের ভয়ে তটস্থ থাকতে হয় ব্র্যাকের অনন্য কর্মকর্তা কর্মচারীদের।

অনুসন্ধানে আরও জানা যায়, ১২ নং নিবন্ধন বহির জন্ম নিবন্ধন নম্বর : ১৯৯৯২২১২৪৭১০০৭৮৬ নিবন্ধনের তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে ১১/০২/২০১৪ ইং ও সনদ ইস্যুর তারিখ ১৮/০৬/২০১৫ ইং এতে জন্মতারিখ উল্লেখ করা হয়েছে ১২/০৪/১৯৯৯ ইং। উল্লেখিত ঠিকানায় তাঁর কোন অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •