বাংলাট্রিবিউন:   ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নগর পিতা হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস। শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) রাতে শিল্পকলা একাডেমি থেকে ঘোষিত ফলাফলে তাকে বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন।

তিনি বলেন, ঢাকা দক্ষিণের মোট ১১৫০ কেন্দ্রের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস নৌকা প্রতীকে ৪,২৪,৫৯৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির ইশরাক হোসেন ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ২,৩৬,৫১২ ভোট।

এছাড়া ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আবদুর রহমান হাতপাখা প্রতীকে পেয়েছেন ২৬,৫২৫ ভোট। গণফ্রন্টের প্রার্থী আবদুস সামাদ সুজন মাছ প্রতীকে পেয়েছেন ১২,৬৮৭ ভোট।

অন্যদিকে জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন লাঙন প্রতীকে পেয়েছেন মাত্র ৫,৫৯৩ ভোট। এছাড়া বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. আক্তারুজ্জামান ওর‌ফে আয়াতুল্লাহ ডাব প্রতীকে ২,৪২১ এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. বাহারা‌নে সুলতান বাহার আম প্রতীকে ৩,১৫৫ ভোট পেয়ে‌ছেন।

নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত ফলাফলে দেখা যায় ভোট প্রদানের হার ছিল খুবই কম। ঢাকার দক্ষিণ করপোরেশনে মাত্র ২৯.০০২ শতাংশ ভোট কাস্ট হওয়ার তথ্য জানায় কমিশন। এরআগে, আজ ১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটিতে বিরতিহীনভাবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। এরআগে, টানা একমাস নগরজুড়ে প্রচারণা চালায় সবগুলো দল।

এদিকে ভোটগ্রহণে অনিয়ম, দলীয় এজেন্টদের মারধর করে কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া, ভোটারদের ভয়ভীতি দেখানো এবং ফল ঘোষণায় অনিয়মের অভিযোগ এনে দুই সিটির নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করে রবিবার (২ ফেব্রুয়ারি) ঢাকায় হরতাল ডেকেছে বিএনপি।

তবে এ হরতাল প্রতিহতের ঘোষণা তাৎক্ষণিকভাবে আসে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে।

উল্লেখ্য, রাজধানীর বিপুল সংখ্যক নাগরিকের সেবা নিশ্চিত করার প্রয়োজনে ঢাকা সিটি করপোরেশনকে দু’ভাগে বিভক্ত করে আওয়ামী লীগ সরকার। এরপর ২০১৫ সালে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। দুটোতেই জয় পায় আওয়ামী লীগ। উত্তর সিটি করপোরেশনে জয়ী হন আনিসুল হক এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে সাঈদ খোকন। তবে আনিসুল হক ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর মারা গেলে ডিএনসিসিতে উপনির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়া হলেও ঢাকার সম্প্রসারিত অংশের সীমানা জটিলতাজনিত কারণে আদালতে রিট হয়। আদালত নির্বাচন আয়োজনের ওপর ৬ মাসের স্থগিতাদেশ দিলেও পরবর্তীতে জাতীয় নির্বাচন থাকায় নির্বাচন কমিশন উপনির্বাচনের আয়োজন করে ২০১৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি। ওই উপনির্বাচনে জয়ী হন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ও ব্যবসায়ী নেতা মো. আতিকুল ইসলাম। মেয়াদ শেষে নতুন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হলে তাকেই আবার দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করে আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে, ঢাকা দক্ষিণে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র হিসেবে পূর্ণ মেয়াদ পার করলেও শেষ বছরে এসে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবসহ কিছু কারণে বিতর্কিত হয়ে পড়েন সাঈদ খোকন। ঢাকার সাবেক মেয়র মোহাম্মদ হানিফের ছেলে হিসেবে প্রথমবার দলের মনোনয়ন পেলেও এবার আর দলের আনুকূল্য পাননি তিনি। তার বদলে ঢাকা দক্ষিণে মনোনয়ন পান শেখ পরিবারের আরেক সন্তান ও ঢাকা-১০ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়ার পর সংসদ সদস্য পদ ছেড়ে তিনি মেয়র পদে নির্বাচন করে বিজয়ী হলেন।

ফজলে নূর তাপস ব্যারিস্টার হিসেবে সুপরিচিত এবং শেখ পরিবারের সন্তান। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার কালরাতে ফজলে নূর তাপসের বাবা শেখ ফজলুল হক মণি এবং মাকেও নৃশংসভাবে হত্যা করে বিপথগামী সেনা সদস্যরা। তখন তার বয়স ছিল মাত্র আড়াই বছর।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •