মো: মনছুর আলম:
একজন সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই)মোর্শেদ আলম।যিনি দীর্ঘ দিন রামু থানায় সরকারি দায়িত্ব পালন করে চলছে। থানার আওতাধীন ঈদগড় দূর্গম জনপদের নিরাপত্তা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব নিয়ে আসে প্রায় তিন বছর পূর্বে, তিনি যোগদানের পর থেকে এলাকার আইনশৃঙ্খলা দিন দিন উন্নতি হয়।তার ভালোবাসা আর মানবিকতা আইনশৃঙ্খলার উন্নয়নে এক অভূতপূর্ব পরিবর্তন হয়।শুধু পুলিশ হিসেবে ক্ষমতার দাপট নয় সামাজিক কাজে অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মতো। সরকারি দায়িত্বশীল ব্যক্তি হিসেবে অপরাধীর চোখে তিনি এক আতংকের নামে পরিচিত।তবে সামাজিকতা আর মানবিকতা তাকে পুলিশ যে জনতার বন্ধু তা প্রমাণ করতে দেরী করেনি।ঈদগড়ের শিশু থেকে বৃদ্ধ সাধারণ জনতার পরিচিত এক নাম মোর্শেদ।তার আচরণে পুলিশ যে জনগণের বন্ধু তা,সহজে অনুমেয়। সচারাচর পুলিশ সম্পর্কে সাধারণ জনতা যে ভয়ভীতি পোষণ করতো তা মোর্শেদ কাটিয়ে উঠে তার অমায়িক আচরণে,তার ভালোবাসায়।তার দক্ষতা, বিচক্ষণতা, নির্ভীক সাহসি ভূমিকায় অপহরন ডাকাতী,বাল্য বিবাহ,ছেলেধরা গুজব বন্ধে ঈদগড়ের শান্তির ছায়া নেমে এসেছে। মানবতার কা‌জে নি‌জে‌কে নি‌য়ো‌জিত রে‌খে সহ‌যো‌গিতা ক‌রে যা‌চ্ছেন অসহায় ও বিপদগ্রস্থ মানুষ‌কে।সত্যি তার কাজ সর্ব মহলে প্রশংসনীয় । ঈদগড়বাসী এএসআই মোর্শেদ আলমকে মন প্রাণ দিয়ে ভাল বাসেন শুধু তার কর্মের কারণে। এএসআই মো‌র্শেদের প্রসংশনীয় কাজের অন্যতম হলো ঈদগড় পেট্রোল পুলিশ সদস্য ও সাধারন পথচারী‌দের জন্য নিজ উ‌দ্যে‌াগে নির্মান ক‌রে‌ছে গণশৌচাগার। তাছাড়া ঈদগ‌ড়ের বিভিন্ন সামা‌জিক সংগঠ‌নে অগ্রনী ভূ‌মিকা পাল‌নে তার অ‌নেক সুনাম র‌য়ে‌ছে। স্থানীয় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সামাজিক প্রতিবন্ধকতা সমাধানে নিবেদিত।অসহায় মানুষকে মামলামুখী না করে নিজে এলাকার জনপ্রতিনিধি নিয়ে ঘটনার সমাধানে কাজ করেন।
দীর্ঘদিন রাত ৮ টার পর ঈদগড় থে‌কে বি‌ভিন্ন স্থা‌নে চলাচলের গা‌ড়ি চলাচল বন্ধ হ‌য়ে যাওয়ায় অসুস্থ রোগী সহ বি‌ভিন্ন পেশার মানু‌ষের জরুরি অবস্থায় রাতের বেলায় চলাচ‌লের সমস্যায় তিনি লিড দিয়ে নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করে চলছেন। কাজের স্বীকৃতী হিসেবে রামু থানার সাবেক অফিসার ইনচার্জ আবুল মনসুর ও বর্তমান অফিসার ইনচার্জ আবুল খায়ের এর হাত থে‌কে সম্মাননা পে‌য়ে‌ছেন অ‌নেকবার।ঈদগড়ের আপামর জনসাধারণ এযাবৎকালে যত পুলিশ অফিসার ঈদগড়ের দায়িত্ব নিয়ে কাজ করেছেন তাদের মধ্যে মোর্শেদ আলম কে একজন চৌকস পুলিশ অফিসার হিসেবে দেখেন।মোর্শেদ আলম দায়িত্বকালীন সময়ে সর্বদাই নিজেকে সচেষ্ট রাখার কথা জানান।প্রসঙ্গত বর্তমান পুলিশ সুপার
এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম(বার) ও রামু থানা অফিসার ইনচার্জ আবুল খায়ের তাদের রুটিন দায়িত্বের পাশাপাশি সামাজিক কাজে অংশগ্রহণ করে সমাজের উন্নয়নে যেভাবে কাজ করছেন তা অনুসরণ করে মোর্শেদ ও জনগণের সহোযোগিতায় ঈদগড়কে অপরাধ মুক্ত রাখার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।