নিজস্ব প্রতিবেদক :

ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা শ্রমিকদল সভাপতির ছোটভাই আবু বক্কর ছিদ্দিক বান্ডির বিরুদ্ধে  চাঁদা দাবীর অভিযোগ করেছেন পুলিশ সুপারের কাছে। ১৩ই জানুয়ারী ইসলামাবাদের খোদাইবাড়ীর মৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট হাবিবুর রহমানের পূত্র ফকির বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সভাপতি হাফিজুর রহমান লিখিত এ অভিযোগটি দায়ের করেন।
অভিযোগ সূত্র মতে, দীর্ঘদিন যাবত ঈদগাঁও টু গোমাতলী টমটম ও অটোরিক্সা লাইন পরিচালনা করে আসতেছি। বিগত ৬ জানুয়ারী উক্ত টমটম ও অটোরিক্সা শ্রমিক কল্যান সমিতি হিসেবে সমবায় অফিসে নিবন্ধিত হয়। যার নং ২৪৭৪। দীর্ঘকাল যাবত ১নং পাশ্বোক্ত ব্যক্তি অপরাপর ব্যক্তিদের প্ররোচনায় ও ইন্দনে উক্ত লাইন থেকে চাঁদা দাবী করে আসতেছিল। কিসের চাঁদা জিজ্ঞেস করলে,পাশ্বোক্ত ব্যক্তিগন আমাকে উক্ত লাইনটি পরিচালনা করতে দিবে না মর্মে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আসতেছিল। তারই ধারাবাহিকতায় গত ১২ জানুয়ারী বিকেলে ১নং পাশ্বোক্ত ব্যক্তির নেতৃত্বে অপরাপর ২-৪ নং ব্যক্তি ও অজ্ঞাত নামা ব্যক্তিগন বাঁশঘাটা সড়কের টমটম ষ্টেশনে গিয়ে অধীনের নিকট থেকে প্রতি গাড়ী থেকে ২০ টাকা করে চাঁদা দাবী করে। অধীন কিসের টাকা জিজ্ঞেস করলে, ১নং ব্যক্তি অধীনকে গালমন্দ করে এবং পার্শ্বোক্ত ব্যক্তিগন লাইন্স ম্যানকে হুমকি ধমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে টমটম ষ্টেশন ত্যাগ করে। তৎসময়ে ঘটনাস্থলে যানজটের সৃষ্টিসহ সাধারন মানুষের চলাফেরায় ব্যাপক ভোগান্তি সৃষ্টি হয়। ১নং ব্যাক্তি আবু বক্কর ছিদ্দিক বান্ডি বিএনপি পরিবারের সন্তান এবং তার আপন বড় ভাই উপজেলা শ্রমিকদল সভাপতি হয়। তার নেতৃত্বে এলাকায় মদ, গাজা, ইয়াবা বিক্রি করা হয়। অভিযোগদাতা হাফিজ একজন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান হওয়া সত্ত্বেও ১নং ব্যক্তি ও অপরাপর অপরাধীগন তাকে টমটম লাইন থেকে বিতাড়িত করার জন্য নানাভাবে ষড়যন্ত্র করে আসছে। পার্শ্বোক্ত
১নং ব্যাক্তি ও অপরাপর ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে মহোদয়ের সমীপে অত্র অভিযোগখানা দায়ের করিতে বাধ্য হলেন হাফিজ। এই অভিযোগে আবু বক্কর ছিদ্দিক বান্ডি ছাড়াও আবদুল লতিফ,আবছার কামাল,সোহেলসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৩/৪ জন রয়েছে।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •