মো. নুরুল করিম আরমান, লামা প্রতিনিধি :

বান্দরবানের লামা উপজেলার দুর্গম পাহাড়ি এলাকার তিন শতাধিক গর্ভবতী মা ও তিন শতাধিক শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন। দুঃস্থ গরীব অসহায় গর্ভবতী মায়েদের সম্পূর্ণ বিনা খরচে পুষ্টি, চিকিৎসা ও নিরাপদ ডেলিভারি সেবা মাতৃমঙ্গল কার্যক্রমের অংশ হিসেবে সেবামূলক এ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। শুক্রবার মুজিব বর্ষ ও জাতির জনকের স্মরণে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে কোয়ান্টামের উদ্যোগে উপজেলার সরই ইউনিয়নের বদিছড়াস্থ কোয়ান্টামমে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, বিশিষ্ট কবি ও সাংবাদিক জাহাঙ্গীর ফিরোজ। কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম সেন্টারের উপদেষ্টা সমন্বয় সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী মুজিবর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক নূরুল হাসান খান ও রিপোর্টার উইদ আউট বর্ডারের বাংলাদেশ প্রতিনিধি সিনিয়র সাংবাদিক সালিম সামাদ বিশেষ অতিথি ছিলেন। এতে সেবা গ্রহীতা মাদের মধ্যে মনিষা দারু ও কনিকা দাশ অনুভূতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, একটি জাতির উন্নয়নে সুস্থ ও সবল সন্তান প্রয়োজন আর সুস্থ সন্তানের জন্যে প্রয়োজন হয় সুস্থ মায়ের। পাহাড়ি বাঙালি নির্বিশেষে সব ধর্মের মায়েদের জন্যে কোয়ান্টাম মাতৃসেবার যে উদ্যোগ নিয়েছে; সবার সহযোগিতায় এ সেবা শুধু চট্টগ্রাম-বান্দরবান নয়; সারা দেশেই ছড়িয়ে দেয়া প্রয়োজন। আমাদের দেশ থেকে একসময় যেমন গুটিবসন্ত, ডিপথেরিয়া নির্মূল হয়ে গেছে, তেমনি সবার সহযোগিতায় সারা দেশে মাতৃমঙ্গলের মতো এমন উদ্যোগ গর্ভবতী মায়েদের নিরাপদ ডেলিভারির মাধ্যমে সুস্থ ও সবল নবজাতক উপহার দিতে পারবে।

কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের মাতৃমঙ্গল কার্যক্রমের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. দেবেলা মল্লিক রায় স্বাগত বক্তব্যে জানান, চট্টগ্রামে ২০০৫ সালে কোয়ান্টামের এ মাতৃমঙ্গল কার্যক্রম শুরু হয়। পরবর্তীতে রাজবিলায় ২০১১ সালে এবং ২০১৫ সালে লামাতে এ সেবা চালু হয়। এ কার্যক্রমের আওতায় অস্বচ্ছল সুবিধাবঞ্চিত গর্ভবতী মায়েদের গর্ভধারণের ৩ মাস থেকে শুরু করে ডেলিভারির সময় ও সন্তান জন্মের পর ৪০ দিন পর্যন্ত একজন মায়ের সম্পূর্ণ চিকিৎসা, ওষুধ ও পুষ্টিসেবা দেয়া হয়। জন্মের ৪০ দিন পর্যন্ত যাবতীয় চিকিৎসা ব্যয়ও প্রদান করে কোয়ান্টাম। তিনি আরো জানান, দুঃস্থ বস্তিবাসী, গৃহকর্মী, নি¤œ আয়ের শ্রমজীবী মানুষ এবং অবহেলিত পাহাড়ি জনগোষ্ঠী মুরং, ত্রিপুরা, তঞ্চঙ্গ্যাসহ পাহাড়ি বাঙালি প্রতিটি ধর্মের মায়েরা এ সেবার অন্তর্ভুক্ত। মাতৃমঙ্গল কার্যক্রমের আওতায় এ পর্যন্ত চট্টগ্রামে ৬৯৬৪ জন, রাজবিলায় ২১২৩ জন ও লামার কোয়ান্টামমে ২৬৬ জন মোট ৯৩৫৩ জন মা সেবা গ্রহণ করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •