ইমাম খাইর, সিবিএন:
কক্সবাজার কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনাল থেকে টমটমে উঠেছেন নুরুল আজিম। যাচ্ছেন লাবনী পয়েন্টে অনুষ্ঠিতব্য মুজিবর্ষের ক্ষণগণনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে। অর্ধেক পৌঁছে লালদীঘিপাড় এলাকায় ঘটে বিপত্তি। আচমকা একদল লাঠিয়াল গাড়ির সামনে হাজির। হুংকারস্বরে ধমকাতে থাকে চালক ও যাত্রীদের। চালকের নিকট জানতে চায়- আজকে কেন গাড়ি বের করেছে?
বকুনি দিয়ে সব যাত্রীকে নামিয়ে দেয় টমটম থেকে। এরপর অগত্যা হাঁটতে হাঁটতে বেচারা নুরুল আজিমসহ যাত্রীরা।
ইত্যবসরে যাত্রীভর্তি আরেকটি টমটম হাজির লালদীঘির পশ্চিমপাড়ে। যাচ্ছে পশ্চিম দিকে। তাদেরও গন্তব্য সাগরপাড়ের লাবনী পয়েন্ট। দেখবে জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকীর অনুষ্ঠান। কিন্তু গাড়ির চাকা ঘুরতে দেয় নি টমটম শ্রমিক নামধারী লাঠিয়াল বাহিনী।
টমটম থেকে নেমে হলুদ গেঞ্জি পরিহিতি নাম অজানা এক যুবক তীব্র প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠে। জানতে চায়- কেন গাড়ি আটকানো হলো? অনুষ্ঠানে যাত্রাপথে কোন যুক্তিতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করলো? লাঠি দিয়ে কেন গাড়িতে বেপরোয়া আঘাত করলো?
তবে, এসময় আরেকটি টমটমে মাইকিং থেকে শুনা গেছে, ৩ দিন আগে থেকে তারা যথাযথ মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকীর (মুজিববর্ষ) অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সকল টমটম চালক ও শ্রমিকদের নির্দেশ দেয়। শুক্রবার (১০ জানুয়ারী) দুপুর থেকে অন্ততঃ বিকাল ৫টা পর্যন্ত গাড়ি বের না করতে বলে। এরপরও যারা অটোবাইক মালিক-শ্রমিক কল্যাণ সোসাইটির নির্দেশ না মেনে টমটম বের করেছে তাদের আটকানো হচ্ছে। জনগণের অনাকাঙ্খিত কষ্টের জন্য দুঃখ প্রকাশ করা হয় মাইকিং এর গাড়ি থেকে।
এদিকে, প্রত্যক্ষদর্শীরা গাড়ি চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করাকে ইতিবাচক নেয় নি। কারণ, গাড়ি না পেয়ে অনেক আগ্রহী ব্যক্তি লাবনী পয়েন্টের অনুষ্ঠানে যেতে পারে নি। এ জন্য লাঠিয়াল শ্রমিকদের দোষারোপ করা হয়।
তবে, টমটম চলাচল করতে না পারলেও সিএনজিসহ অন্যান্য যানবাহন চলাচলে কোন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয় নি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •