যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বিভিন্ন দেশের যত যুদ্ধ

সিবিএন ডেস্ক :

সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যকার সংঘাতে নড়েচড়ে বসেছে পুরো বিশ্ব। বিশ্বের অন্যতম পরাশক্তি হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সব দেশেই নাক গলাতে আসে। ফলে সেসব দেশের সঙ্গে সংঘাত অনিবার্য হয়ে পড়ে। মেক্সিকো থেকে শুরু করে ইরান পর্যন্ত বেশ কয়েকটি দেশের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়েছে দেশটি। তারই ধারাবাহিক বিবরণ তুলে ধরা হলো-

মেক্সিকো যুদ্ধ

mexico

মেক্সিকো যুদ্ধই যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম যুদ্ধ। এটি তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জেমস কে পোলকের চাপিয়ে দেওয়া একটি যুদ্ধ। ১৮৪৬-১৮৪৮ সালে এ যুদ্ধ সংঘটিত হয়। এই দু’ বছরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ২.৭২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করে। এ যুদ্ধের প্রধান কারণ ছিল টেক্সাস। যা এক দশক আগে মেক্সিকোর কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করেছিল। চূড়ান্তভাবে জয়ী হওয়ার পর মেক্সিকোর ভূখণ্ডের ৩ ভাগের ১ ভাগ আমেরিকার দখলে চলে যায়। মেক্সিকো যুদ্ধে ১৩,২৮৩ মার্কিন সেনা নিহত হয়।

স্পেন যুদ্ধ

spen

১৮৯৮ সালে স্পেনের সঙ্গে যুদ্ধ করে যুক্তরাষ্ট্র। এটি ক্ষণস্থায়ী যুদ্ধ ছিল। একে ইতিহাসের প্রথম ‘গণমাধ্যম যুদ্ধ’ বলা হয়। মনরো মতবাদের প্রেক্ষাপটে মার্কিন কংগ্রেস আনুষ্ঠানিকভাবে এ যুদ্ধ ঘোষণা করে। চার মাস স্থায়ী সেই যুদ্ধে ২,৪৪৫ মার্কিন সদস্য মারা যায়। বিপরীতে প্রায় ১৬,০০০ স্প্যানিশ সৈন্য প্রাণ হারায়। এ যুদ্ধের ব্যয় ধরা হয় ১০.৩৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এ যুদ্ধের ফলে যুক্তরাষ্ট্র ঊনবিংশ শতকের শেষভাগেই একটি বৈশ্বিক শক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।

জার্মানি যুদ্ধ

jarman

১৯১৪ সালে ইউরোপে যুদ্ধ শুরু হয়। একে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ বলা হয়। এ যুদ্ধের প্রথম তিন বছর যুক্তরাষ্ট্র নিরপেক্ষ ছিল। ১৯১৭ সালের ২ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্র জার্মানির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অংশ নেয়। তার ১৯ মাস পর বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়। এ যুদ্ধে ১,১৬,৫১৬ জন মার্কিন সেনা মারা যায়। এতে ৩৮১.৮ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে যুক্তরাষ্ট্র।

ইউরোপীয় যুদ্ধ

uropio

১৯৪১ সালের ৭ ডিসেম্বর পার্ল হারবারে জাপানিদের বোমা বর্ষণের পরদিনই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মিত্রজোটে যোগ দেয় যুক্তরাষ্ট্র। জার্মানি ও ইতালি যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার তিন দিন পরই যুক্তরাষ্ট্রও দেশ দু’টির বিরুদ্ধে যুদ্ধের ঘোষণা দেয়। ১৯৪৫ সালের মে মাসে ইউরোপীয় যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। আগস্টে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট হ্যারি এস ট্রুম্যান জাপানের হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে পারমাণবিক বোমা ফেলার নির্দেশ দেন। যার আঘাতে বিধ্বস্ত হয়ে সে বছরই আত্মসমর্পণ করে জাপান।

কোরিয়ান যুদ্ধ

korean

১৯৫০ সালে কোরিয়ান যুদ্ধের শুরু। মার্কিন প্রেসিডেন্ট হ্যারি এস ট্রুমান উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনীকে দক্ষিণ থেকে উৎখাত করতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিলের সমর্থন নেয়। তৎকালীন মার্কিন জেনারেল ডগলাস ম্যাক আর্থারের কাজকে যুদ্ধ হিসেবে ব্যাখ্যা করে সংঘর্ষে জড়ায় চীন। ডুইট আইজেনহোয়ার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর এ যুদ্ধ শেষ হয়। যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের ৩৮৯.৮১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ হয়। এতে প্রায় ৩৬,০০০ মার্কিন সেনা মারা যায়।

ভিয়েতনাম যুদ্ধ

vietnam

এটি মার্কিন ইতিহাসের এক ব্যর্থ যুদ্ধ। ১৯৫৪ সালে ভিয়েতনামিরা ফরাসিদের পরাজিত করে উপনিবেশবাদ যুগের অবসান ঘটায়। ১৯৫৫ সালে আঞ্চলিক একটি সংঘাত থেকে ভিয়েতনাম যুদ্ধ রূপ নেয়। ১৯৬৫ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পর দিয়েমকে হত্যা করা হয়। নতুন সামরিক নেতৃত্বাধীন দক্ষিণ ভিয়েতনামি সরকার ভিয়েতনামিদের সমর্থন হারাতে শুরু করে। ১৯৬০-এর দশকের শেষদিকে যুদ্ধের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জনসাধারণের সমর্থন হারাতে শুরু করে। ১৯৭৩ সালে ভিয়েতনাম থেকে সেনা প্রত্যাহার করে নেয় আমেরিকা। ১৯৭৫ সালে দক্ষিণ ভিয়েতনাম কমিউনিস্ট উত্তর ভিয়েতনামের কাছে পরাজিত হয়। এ যুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৮৪৩.৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় হয়। যুদ্ধে ৫৮,০০০ সেনা নিহত হয়।

ইরাক যুদ্ধ

Iraq

প্রচলিত আছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সাদ্দাম হোসেনের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে ইরাকে হামলা চালায়। ইরাকের এ সংঘাতের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে প্রায় ১ ট্রিলিয়নের বেশি মার্কিন ডলার ব্যয় করতে হয়। সাদ্দামের কাছে ব্যাপক অস্ত্র রয়েছে বলে মার্কিন সেনারা ২০০৩ সালে ইরাকে আক্রমণ করে। দেশটি এখনো সংঘাত ও সন্ত্রাসের ক্ষেত্র হিসেবে চিহ্নিত। এখন পর্যন্ত সাদ্দাম হোসেনের সেই বিধ্বংসী অস্ত্রের সন্ধান দিতে পারেনি আমেরিকা। ৭ বছর ৫ মাসব্যাপী এ যুদ্ধে ৪,৪১০ জন মার্কিন সেনা মারা যায়।

আফগান যুদ্ধ

afgan

২০০১ সালে শুরু হয় আফগান যুদ্ধ। যা এখনো চলছে। ২০০১ সালে ওসামা বিন লাদেনের নেতৃত্বে আল-কায়েদা হামলা চালিয়েছে এমন অভিযোগে আফগান সরকারের কাছে লাদেনকে হস্তান্তর করার আহ্বান জানায়। তালেবানরা প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে যুদ্ধের সূত্রপাত হয়। ২০০১ সালের হামলার পর থেকে আফগানিস্তানে আন্তর্জাতিক জোট বাহিনীর প্রায় সাড়ে ৩ হাজার সৈন্য মারা যায়। এরমধ্যে ২,৩০০ জনেরও বেশি যুক্তরাষ্ট্রের। এ সংঘাতে ৩২ হাজারেও বেশি বেসামরিক লোক মারা যায়। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলে এখনো তালেবান-মার্কিন শান্তি আলোচনা চলছে।

ইরান যুদ্ধ

iran

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নির্দেশে ২০১৯ সালের ৩ জানুয়ারি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ইরানের জেনারেল কাসেম সোলেইমানি নিহত হওয়ার পর বিশ্বপরিস্থিতি উত্তেজনাকর পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে। ইরান আর আমেরিকার পাল্টাপাল্টি হুমকির মুখে ইরাকে অবস্থিত দুটি মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে ইরান ১ ডজনের বেশি ব্যালিস্টিক মিসাইল হামলা চালিয়েছে। সোলেইমানিকে দাফনের একটু আগেই ইরানের স্থানীয় সময় ৮ জানুয়ারি রাত দেড়টার দিকে এ হামলা শুরু হয়। ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হয়েছে, সোলেইমানিকে ড্রোন হামলায় হত্যার জবাব হিসেবে এ হামলা করা হয়েছে। তারা এই অভিযানের নাম দিয়েছে ‘অপারেশন শহীদ সোলেইমানি’।

সূত্র: ওয়াশিংটন পোস্ট

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজার শহরে ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন

বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্ক এলাকা থেকে কৃষকের লাশ উদ্ধার

চকরিয়ায় মাদকাসক্ত ছেলেকে পুলিশে দিলেন বাবা

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার ফেরাতে চীনের ‘মানবিক উদ্যোগ’ ব্যর্থ

চকরিয়ায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় পথচারী বৃদ্ধ নিহত

গর্জনিয়া ইউনিয়ন বিট পুলিশিং সমন্বয় কমিটি গঠিত

ওবায়দুল কাদেরের আগমনে জেলা আওয়ামী লীগের স্বাগত মিছিল

মুজিববর্ষে কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের নানা কর্মসূচি গ্রহণ

জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিয়োগ পেলেন রুমি ও মনছুর

কউক এর বিল্ডিং কনস্ট্রাকশন কমিটির ২২ তম সভা সম্পন্ন

টেকনাফের ইয়াবাকারবারী তাহেরের বাড়ির মালামাল ক্রোক

পেকুয়ায় স্বামীর পরকিয়া সইতে না পেরে স্ত্রীর আত্মহত্যা!

কক্সবাজারের সিজেএম তৌফিক আজিজ জেলা জজ হলেন

জেলায় জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন সার্ভার চালুকরণে সচেতনতা বিষয়ক আলোচনা সভা

কক্সবাজারে সহকারী জজ নিয়োগ পেলেন পাঁপড়ি বড়ুয়া

কক্সবাজার আদালতে ইয়াবা মামলায় একজনের ৫ বছর সশ্রম কারাদণ্ড

রামুতে প্রবাসী হত্যার প্রধান আসামী খুইল্ল্যা মিয়া গ্রেপ্তার

টেকনাফে আত্মসমর্পণকৃত ১০১ ইয়াবাকারবারীর বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল

মহেশখালীতে র‌্যাবের ভুয়া সদস্য গ্রেপ্তার

রহস্যময় ভাইরাস আরো ছড়িয়েছে, বাংলাদেশে সতর্কতা