শখের বসে কেক বানাতে গিয়ে সাকিয়ার মাসে আয় ৬০ হাজার!

প্রথমআলো:

থরে থরে সাজানো তিনটি বই, ফুলের তোড়া, সমাবর্তনের টুপি আর লাল ফিতেবন্দী সনদ। অন্য পাশে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের লোগো। এ জিনিসগুলো আসলে পুরোটাই একটা কেক, খাওয়ার যোগ্য। এতটা নিখুঁতভাবে কেক বানানো যায়?

এই কেকের কারিগর সাকিয়া সুলতানা। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম পুনর্মিলনীতে নিজের তৈরি সেই ১১ কেজি ওজনের কেক নিয়ে এসেছিলেন । শখের বশে দুই বছর আগে শুরু করেছিলেন কেক বানানো। এখন সেই কেক থেকেই তাঁর আয় মাসে অন্তত ৬০ হাজার টাকা।

১৯৯৬ সাল। এসএসসি পরীক্ষার পরপরই বিয়ে হয় সাকিয়ার। স্নাতক প্রথম বর্ষে পড়ার সময় কোলজুড়ে আসে বড় মেয়ে ফাইরুজ তাহমিনা। স্নাতকোত্তর পরীক্ষার কয়েক মাস আগেই জন্ম দ্বিতীয় মেয়ে ফারহা তাসনিয়ার। এরপর তৃতীয় মেয়ে ফারিবা তানজিমের জন্ম। মেয়েদের নিয়ে ব্যস্ততায় চাকরিতে ঢোকার সুযোগ হলো না। ২০১৭ সালে মালয়েশিয়ায় ব্যবসা করা বড় ভাই আলিম চৌধুরী সাকিয়াকে জানালেন, তিনি চট্টগ্রাম নগরে একটি কফি শপ দেবেন। সেই শপে কেক সরবরাহের দায়িত্ব পেলেন সাকিয়া।

সাকিয়া জানালেন, প্রথমে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক চ্যানেল—টিএলসির বিভিন্ন শো দেখে কেক বানানোর কৌশল আত্মস্থ করার চেষ্টা করেন। এরপর মালয়েশিয়া, ভারত ও আরব আমিরাতে গিয়ে বিশ্বের প্রখ্যাত কেক শিল্পীদের কাছ থেকে হাতেকলমে শেখেন। তারপর ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে ‘আর্টসি কেকস’ নামের পেজ খুলেন। বাড়তে থাকে পরিচিতি। এখন প্রতি সপ্তাহেই তাঁর কাছে ৩ থেকে ৪টি কেকের ফরমাশ আসে।

যেকোনো একটি নকশা দিলেই হবে—হুবহু সেটি কেকে ফুটিয়ে তুলতে পারেন সাকিয়া। গত দুই বছরে কয়েক শ কেক বানিয়েছেন। কোনো কেকে উঠে এসেছে বিখ্যাত চরিত্র হাল্ক। কোনোটিতে আবার পরম শান্তিতে ঘুমিয়ে আছে শিশু, কম্বল মোড়ানো। কোনোটিতে আবার ফুটে উঠেছে গাড়ি, কার্টুন কিংবা মানুষের মুখ। ৫ বাই ১০ হাতের একটি কক্ষে সাকিয়ার স্টুডিও। সেই কক্ষ ঠাসা ছুরি-কাঁচি থেকে শুরু করে নানা আকারের যন্ত্রাংশে। আছে কেক তৈরির নানা উপকরণও। চট্টগ্রাম নগরের নিজাম আবাসিক এলাকার বাসায় গিয়েও প্রায় একই ধরনের দৃশ্যের দেখা মেলে।

সাকিয়া বললেন, ‘ শখের বসে কেকও বানাতে শুরু করি। এ থেকে আয় হবে—সেটা কখনো ভাবিনি। আর এই কাজের পেছনে আমাকে সার্বক্ষণিক উৎসাহ দিচ্ছেন বড় ভাই আর আর স্বামী এমরান শওকত।’

সাকিয়ার কাছে আসা কেকের ফরমাশের মধ্যে বেশির ভাগই—বিভিন্ন অনুষ্ঠানকেন্দ্রিক। অনুষ্ঠানকেন্দ্রিক বেশ কিছু নকশা করে ক্রেতাদের দেখান। আবার ক্রেতা নিজেরাও নকশা দেন। একটা কেক বানাতে এক থেকে তিন দিন সময় লাগে। কেকের প্রায় সব উপকরণই আসে দেশের বাইরে থেকে।

সাকিয়া সুলতানা স্বপ্ন—একদিন তাঁর ব্যবসার পরিসর আরও বাড়বে। দেবেন একটি বড় কারখানা। সবখানে ছড়িয়ে পড়বে তাঁর কেকের সুনাম।

সর্বশেষ সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর প্রয়াত সামরিক সচিবের স্মরণ সভা উপলক্ষে লোহাগাড়ায় প্রস্তুতি সভা

এসপিসহ পুলিশ কর্মকর্তাদের নাগরিক সংবর্ধনা কাল

এসএসসি পরীক্ষার সূচিতে পরিবর্তন

পল্লীকবি জসিম উদ্দিনের সাহিতকর্ম নিয়ে রামু লেখক ফোরামের সাহিত্য আসর

শহরে বাসায় ঢুকে কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

রাজনীতিতে বাধা-বিপত্তি আসবে, ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করতে হবে -এড. শামীম আরা স্বপ্না

যশোরের নাভারন রেলষ্টেশন থেকে ২টি স্বর্ণের বার উদ্ধার

অভিযানের মাঠে এমপি জাফর, অবৈধ কাউন্টার সীলগালা

হোয়ানক আব্দুল মাবুদ চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

রাক্ষুসে পিরানহা ‘সুস্বাদু চাঁন্দা’ মাছ বলে বিক্রি!

লিবিয়ার পরিস্থিতি এতো জটিল হলো কিভাবে?

একই সাথে অনুষ্ঠিত হলো দুর্ঘটনায় নিহত দম্পতির জানাজা, সর্বত্র শোকের ছায়া

পুলিশের কার্যক্রমে নতুন যানবাহন আরো গতি আনবে : এসপি মাসুদ

নতুন পাসপোর্ট করছেন? যে তথ্য জানা জরুরি

চাঁদা না দিলে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদের হুমকি

সেনা মোতায়েনে যুক্তরাষ্ট্রকে ৫০ কোটি ডলার দিয়েছে সৌদি আরব

চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীদের জন্য ১০টি দোতলা বাস দিলেন প্রধানমন্ত্রী

এক দুর্ঘটনায় মা-বাবাকে হারিয়ে ‘এতিম’ ছোট্ট রাহিন

মিয়ানমার সফরে চীনের প্রেসিডেন্ট, রাখাইনে হবে সমুদ্রবন্দর

ফাইনালসেরা রাসেল হলেন টুর্নামেন্টসেরাও