এহসান আল কুতুবী:
কক্সবাজারের হোটেল-মোটেল জোনে গণপূর্ত অধিদপ্তরের তত্বাবধানে থাকা একাধিক ফ্ল্যাটে চলছে অবৈধ যৌন ব্যবসাসহ নানান অপরাধ কর্মকান্ড। যদিও গণপূর্ত বরাদ্ধকৃত ভবনের নীতিমালায় উল্লেখ ছিল শুধুমাত্র মালিকগণ বসবাস করতে পারবেন অথবা নিকট আত্মীয়দের মাসিক ভাড়া দিতে পারিবেন। যেহেতু গণপূর্তের ভবনগুলো বাণিজ্যিক ভবন না। শুধুমাত্র আবাসিক ভবন হিসেবে ব্যবহারযোগ্য।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বেশ কয়েকজন ফ্ল্যাট মালিক নীতিমালাবিহীন পর্যটকদেরকে ভাড়া দিচ্ছেন। যার ফলে অবৈধভাবে যৌনকর্মী ও আবাসিক হোটেল হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। পাশাপাশি এসব ফ্ল্যাটে মদ, ইয়াবা ও গাঁজা সেবনকারীদের আড্ডা চলছে বলেও অভিযোগ প্রত্যক্ষদর্শীদের।

এদিকে, অভিযোগ পেয়ে গত ৩০ ডিসেম্বর কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)’র একটি দল গণপূর্ত ভবন এক এ অভিযানে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ফ্লাট মালিকরা জানান, আমাদের ফ্ল্যাটের অনেকগুলো মালিক রয়েছে। কে বা কারা এ সমস্ত কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে তা আমরা অবগত নই। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পরিদর্শক মানস বড়ুয়া বলেন, গণপূর্ত অধিদপ্তরের তত্বাবধানে এসব সরকারী ফ্ল্যাটে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করছিল। তাই ডিবির কাছে অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযান চালানো হয়েছে। তাদের কঠোর নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। ভবিষ্যতে যাতে আর এধরণের ব্যবসা থেকে বিরত থাকে।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •