শাহেদ মিজান, সিবিএন:

কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের আওয়ামী লীগের সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা বলেছেন, আইনজীবি পেশায় সারাজীবন তিনি মাদকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। কখনো, কোনোভাবেই তিনি ইয়াবাসহ কোনো মাদক মামলায় আসামীর পক্ষ হয়ে তিনি আদালতে লড়েননি। শুধুমাত্র মাদকমুক্ত সমাজ ও দেশ গঠনের অঙ্গীকার হিসেবে তিনি অর্থের প্রলোভনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কর্মজীবনের পুরোটা সময় মাদকের বিরুদ্ধে নিজের অবস্থান পোক্ত রেখেছেন। এর স্বীকৃৃিত স্বরূপ তিনি পুরস্কৃত হয়েছেন।

বৃৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কক্সবাজার পাবলিক হয় ময়দানে ৩০তম মাদকদ্রব্য দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত মাদক আলোচনা সভায়  বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, কর্মজীবনের শুরু থেকেই আইন পেশায় নিয়োজিত রয়েছি। এই পেশায় বহুকাল পার করেছি। সব সময় বহু মামলা লড়তে হয়েছে। কিন্তু এই দীর্ঘ সময়ে একটি মাদক মামলায়ও আসামীর পক্ষে আমি লড়িনি। রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে অহরহ প্রস্তাব এসেছে এবং বিনিময়ে প্রস্তাব করেছে কাড়ি কাড়ি টাকা। অর্থের প্রলোভন আমাকে আমার নীতিগত অবস্থান থেকে এক বিন্দুও নড়াতে পারেনি।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা বলেন, আওয়ামী লীগের সভাপতির পদে আসার পর প্রভাবশালী আইনজীবি হিসেবে বিভিন্ন মামলায় বেশি প্রস্তাব আসে। কিন্তু সব মামলায় লড়লেও ইয়াবাসহ মাদকের মামলা আমি মুখে উপর ‘না’ করে দিই। মাদকের মামলা লড়লে আমি অঢেল টাকা পেতাম। কিন্তু আমি অর্থ চাইনি; আমার দেশটাকে মাদকমুক্ত রাখতে চেয়েছি। আমি মনে শুধু আইনজীবি নয়, সমাজের প্রতিটি মানুষ যদি নানাভাবে এভাবে মাদকের বিরুদ্ধে অবস্থায় নেন তাহলে এই দেশ একদিন মাদকমুক্ত হবে।’

জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই মাদক বিরোধী সমাবেশ প্রধান অতিথি ছিলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মোঃ শামসুল হক টুকু। বিশেষ অতিথি ছিলেন, কক্সবাজার ০৩ (সদর- রামু) আসনের সংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য কানিজ ফাতেমা আহমদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান, সিভিল সার্জন আবদুল মতিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কক্সবাজার অফিসের সহকারী পরিচালক সোমেন মন্ডল।

  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •