cbn  

শাহেদ মিজান, সিবিএন:
তথ্য গোপন করে সরকারি টাকা তুলে আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের দায়ের করা মামলার আসামী শাহ মজিদিয়া বালিকা মাদ্রাসার এক সাবেক শিক্ষক ও পরিচালনা কমিটির সভাপতিকে কারাগারে প্রেরণ আদালত।

তারা হলেন, ওই মাদ্রাসার সাবেক শিক্ষক মাওলানা তমিজ উদ্দীন ও সাবেক সভাপতি নূর মোহাম্মদ মাতব্বর।
আজ বুধবার দুপুর ১২টায় ওই মামলায় দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চাইলে জামিন নামঞ্জুর করে তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক খন্দকার ফিরোজ এই আদেশ দেন বিচারক । দুদকের আইনজীবি খোরশেদ আলম এই তথ্য জানান

তিনি জানান, স্ব-ইচ্ছায় মাদ্রাসার শিক্ষকতার দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করার পরও তথ্য গোপন করে ২০১৫ সালের চলমান বেতন তুলে নেন মাদ্রাসার তৎকালীন সুপার মাওলানা সোলাইমান ও শিক্ষক মাওলানা তমিজ উদ্দীন। অবৈধভাবে টাকা উত্তোলনে সহায়তা করেন তৎকালীন মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি নূর মোহাম্মদ মাতব্বর। এই ঘটনায় মাদ্রাসার পরিচালনার কমিটির সদস্য মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান দুদকে অভিযোগ করেন। অভিযোগ তদন্ত করে সত্যতা পেয়ে ২০১৬ সালে মাদ্রাসার তৎকালীন সুপার মাওলানা সোলাইমান, শিক্ষক মাওলানা তমিজ উদ্দীন ও পরিচালনা কমিটির সভাপতি নূর মোহাম্মদ মাতব্বরের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করে দুদক। ওই মামলায় দীর্ঘ প্রক্রিয়া শেষে তিন আসামীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেন। একই সাথে তাদের মালামাল ক্রোকের নির্দেশ দেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির গ্রেফতার হন তৎকালীন সুপার মাওলানা সোলাইমান। দীর্ঘদিন কারাগারে থেকে উচ্চ আদালত জামিন নিয়ে কারামুক্ত হন তিনি। কিন্তু দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন শিক্ষক মাওলানা তমিজ উদ্দীন ও সভাপতি নূর মোহাম্মদ মাতব্বর। আজ বুধবার (১জানুয়ারি) কক্সবাজার স্পেশাল জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন তারা। কিন্তু আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

দুদকের আইনজীবি খোরশেদ আলম বলেন, আসামীরা দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিন আবেদন করলে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •