বিবিসি বাংলা:

অস্ট্রেলিয়ায় বুনো আগুনের কারণে ভিক্টোরিয়া রাজ্য থেকে হাজার হাজার বাসিন্দা ও ছুটি কাটাতে আসা মানুষজনকে রাজ্য ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

সেখানে তাপমাত্রা এখন ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে গেছে। সেই সঙ্গে ঝড়ো বাতাস আর বজ্রপাত হচ্ছে। বাতাসের দিক পরিবর্তন হলে সোমবার সবচেয়ে বিপজ্জনক পরিস্থিতি হয়ে উঠতে পারে।

জরুরি সেবার প্রধান অ্যান্ড্রু ক্রিস বলেছেন, যারা ইস্ট গিপসল্যান্ড এলাকায় রয়েছেন, তাদের কোনরকম দেরি না করে সোমবার সকালের আগে ওই এলাকা ছাড়তে হবে।

অস্ট্রেলিয়ার বনাঞ্চলে এখন একশোর বেশি বুনো আগুন জ্বলছে।

সবচেয়ে বড় বুনো আগুনটি জ্বলছে নিউ সাউথ ওয়েলসের সিডনি শহরের কাছাকাছি। সেখানে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ একটি পিটিশন স্বাক্ষর করেছেন যেন নতুন বছরের আগের রাতে আতশবাজি অনুষ্ঠান বাতিল করা হয় এবং সেই খরচ আগুনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ব্যয় করা হয়।

নিউ সাউথ ওয়েলসের সিডনি শহরের প্রায় আড়াই লাখ মানুষ একটি পিটিশন স্বাক্ষর করেছেন যেন নতুন বছরের আগের রাতে আতশবাজি অনুষ্ঠান বাতিল করা হয় এবং সেই খরচ আগুনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ব্যয় করা হয়।নিউ সাউথ ওয়েলসের সিডনি শহরের প্রায় আড়াই লাখ মানুষ একটি পিটিশন স্বাক্ষর করেছেন যেন নতুন বছরের আগের রাতে আতশবাজি অনুষ্ঠান বাতিল করা হয় এবং সেই খরচ আগুনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ব্যয় করা হয়।

ভিক্টোরিয়ায় কী ঝুঁকি রয়েছে?

ইস্ট গিপসল্যান্ডে ব্রুথেন, বুচান আর বোনাং শহরের কাছে তিনটি বুনো আগুন জ্বলছে, যা আরো বেড়ে যাওয়ার পূর্বাভাস রয়েছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, আগুনগুলো উপকূলের দিকে চলে যেতে পারে এবং উপকূল এলাকা থেকে অঞ্চলটিকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলতে পারে।

মি. ক্রিস, ভিক্টোরিয়া রাজ্যের জরুরি ব্যবস্থাপনা কমিশনার বলেছেন, মেলবোর্নের পূর্ব দিকে, ইস্ট বায়র্নসডেল এলাকার আশেপাশের প্রায় ২৮০ কিলোমিটার এলাকায় থাকা প্রত্যেকের সরে যাওয়া উচিত।

”আমরা এখন যা বলছি, তা হলো, পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে বোঝা যাচ্ছে, আগুনটি আগামীকাল পুরো রাজ্য জুড়ে ছড়িয়ে পড়তে পারে, বিশেষ করে ইস্ট গিপসল্যান্ড এলাকায়। আপনি যদি রাজ্যের কোন অংশে ছুটি উপভোগ করতে থাকেন, এখনি এখান থেকে সরে যাওয়া উচিত।”

জরুরি বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, তারা আর ইস্ট গিপসল্যান্ড এলাকায় সব অতিথিকে সহায়তা দেয়া অব্যাহত রাখতে পারবেন না।

”সোমবার আগুন বিপজ্জনক মাত্রায় চলে যেতে পারে বলে, সবাইকেই রবিবারের মধ্যে ইস্ট গিপসল্যান্ড এলাকা থেকে চলে যেতে হবে। এই এলাকায় কেউ ভ্রমণ করবেন না। ইস্ট গিপসল্যান্ড এলাকায় আসা সব অতিথিকে সহায়তা দেয়া আমাদের পক্ষেও সম্ভব না।”

জরুরি বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, তারা আর ইস্ট গিপসল্যান্ড এলাকায় সব অতিথিকে সহায়তা দেয়া অব্যাহত রাখতে পারবেন না।জরুরি বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, তারা আর ইস্ট গিপসল্যান্ড এলাকায় সব অতিথিকে সহায়তা দেয়া অব্যাহত রাখতে পারবেন না।

ভিক্টোরিয়ার বেশিরভাগ এলাকা জুড়ে চরম আগুন সতর্কতা জারি রয়েছে। শুষ্ক, খরা উপদ্রুত এলাকায় বজ্রপাত হলেই দ্রুত আগুন ধরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে, যা সেখানকার মানুষ ও ঘরবাড়ির জন্য হুমকি হয়ে উঠতে পারে, কর্মকর্তারা বলছেন।

রাজ্যে পরিকল্পিত বড় একটি গানের অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে। আয়োজকরা বলছেন, নতুন বছরের আগের রাতে লোর্নে শহরে জনপ্রিয় ফলস নিউ ইয়ার্স ইভ ফেস্টিভ্যাল আয়োজন করা খুবই বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে।

গানের উৎসব স্থানে এর মধ্যেই প্রায় ৯ হাজার মানুষ ক্যাম্পিং করতে শুরু করে দিয়েছে। তাদের সবাইকে জরুরি পরিস্থিতির এই সময়ে এতো তাড়াতাড়ি সরিয়ে নেয়া সম্ভব হবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

”আমরা যথাসাধ্য সবার কাছে আহবান পৌঁছে দিচ্ছি, কিন্তু এখন সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি আমাদের পৃষ্ঠপোষক, শিল্পী আর স্টাফদের নিরাপত্তার প্রতি, ” একজন আয়োজক জেসিকা ডুক্রো বলেছেন।

অস্ট্রেলিয়ার আগুন নেভাতে কাজ করছেন অনেক স্বেচ্ছাসেবী দমকল কর্মীঅস্ট্রেলিয়ার আগুন নেভাতে কাজ করছেন অনেক স্বেচ্ছাসেবী দমকল কর্মী

নিউ সাউথ ওয়েলসের কি অবস্থা?

নিউ সাউথ ওয়েলস এবং সাউথ অস্ট্রেলিয়ায় বুনো আগুন উপদ্রুত এলাকাগুলোয় তাপমাত্রা এখন ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নিউ সাউথ ওয়েলস হচ্ছে বুনো আগুনের সবচেয়ে বেশি শিকার রাজ্য, যেখানে প্রায় একশোর বেশি আগুন জ্বলছে। মঙ্গলবার সেখানকার পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

”আগামী কয়েকদিন ধরে পরিস্থিতি আরো অবনতি হবে বলে ধারণা করছি, বিশেষ করে সোমবার এবং মঙ্গলবার,”বলেছেন নিউ সাউথ ওয়েলসের দমকল বিভাগের কমিশনার শানে ফিৎজসিমোনস।

সিডনির দক্ষিণ-পশ্চিমের বালমোরাল শহর গত ২২শে ডিসেম্বর ব্যাপক ভাবে ধ্বংস হয়েছে এবং দক্ষিণের বেশিরভাগ সড়ক বন্ধ রয়েছে।

শনিবার অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন ঘোষণা দিয়েছেন যে, যারা বুনো আগুনের বিরুদ্ধে নিজেদের কাজ ফেলে স্বেচ্ছাসেবী হিসাবে লড়াই করছেন, তাদের কাজে ক্ষতিপূরণ সরকার দেবে।

সেপ্টেম্বর মাস থেকে শুরু হওয়া বুনো আগুনে অস্ট্রেলিয়ায় এ পর্যন্ত প্রায় ১০ লাখ একর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আগুনের কারণে অন্তত আটজনের মৃত্যু হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •