রাঙামাটিতে নাগরিক পরিষদের মানববন্ধনে বক্তাদের হুমকি

 

আলমগীর মানিক,রাঙামাটি :

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) এর সভাপতি সন্তু লারমার নেতৃত্বে পাহাড়ে কোটি কোটি টাকা চাঁদাবাজি করা হচ্ছে এবং এই চাঁদার টাকা দিয়ে অবৈধ অস্ত্র কিনে পাহাড়ে সশস্ত্র তৎপরতা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন পার্বত্য নাগরিক কমিটির নেতৃবৃন্দ। পার্বত্য চট্টগ্রামের বিরাজমান ভূমি সমস্যার সমাধানে গঠিত পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইনটি সংশোধনের দাবিতে শনিবার রাঙামাটি শহরে আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচীতে নেতৃবৃন্দ এই অভিযোগ করেন।

শহরের অন্যতম প্রধান বাণিজ্যিক এলাকা বনরূপা বাজারে সকাল এগারোটায় আয়োজিত এই মানববন্ধন কর্মসূচীতে হাজারো নারী-পুরুষ অংশগ্রহণ করে। পার্বত্য নাগরিক কমিটির ষ্ট্যায়ারিং কমিটির সদস্য মোহাম্মদ সোলায়মান এর সভাপতিত্বে উক্ত মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মোঃ পারভেজ তালুকদার, হাবিবুর রহমান হাবিব, মাওলানা আবু বক্কর, মোঃ শাহজাহান প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, পার্বত্য ভূমি কমিশন আইনটি পাহাড়ে সম্প্রদায় ভিত্তিক বিভাজন সৃষ্টি করছে। এই আইনের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত বাঙ্গালী সম্প্রদায়কে সম্পূর্নরূপে বিতারিত করার পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। পাহাড়ে বসবাসরত বাঙ্গালী সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব ছাড়া গঠিত পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন কোনো ভাবেই বাঙ্গালীদের স্বার্থ রক্ষায় কাজ করতে পারবে না মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, পাহাড়ে চলমান ভূমি বিরোধকে সুষ্ঠভাবে নিষ্পত্তি করতে হলে বর্তমান আইনকে সংশোধনের কোনো বিকল্প নেই।

এছাড়াও ব্যাপক হারে সশস্ত্র তৎপরতার অন্যতম ইন্ধনদাতা পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেএসএস এর সভাপতি সন্তু লারমা-ই পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক সংঘাত জিইয়ে রেখেছে। তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি-অস্ত্রবাজির ব্যাপক অভিযোগ থাকা সত্বেও প্রশাসন তাকে আইনের আওতায় আনতে পারছেনা।

সন্তু লারমাকে অভিলম্বে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে বলেন, পাহাড়ে ভুমি কমিশন কার্যকর করতে হলে অবশ্যই ভূমি কমিশন আইনটি সংশোধন করতে হবে অন্যথায় ভবিষ্যতে পুরো রাঙামাটিতে বিদ্রোহের দাবানল জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন পার্বত্য নাগরিক পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •