প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

আশেক উল্লাহ রফিক এমপি বলেছেন, ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের হত্যা করে পুরো জাতিকে অচল করে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল। এতে যতনা দায়ী পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী তার চেয়ে বেশী দায়ী এ দেশীয় দোসররা। তারা হানাদারদের সহযোগীতা করেছে তাই মুক্তিযোদ্ধা ও দেশ প্রেমিক মানুষ নানা প্রতিকুলতার সম্মুখিন হয়েছে। আমরা সেদিন জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের হারিয়েছি। যার অভাব এখনো পূরণ হয়নি। এটি ছিল জাতিকে মেধাশূন্য করার ষড়যন্ত্র। এই দেশ বিরোধীরা তারই ধারাবাহিকতায় ৭৫ এর ১৫ আগষ্ট জাতির জনকে হত্যা করেছে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর এই ঘাতকদের রাষ্ট্রীয়ভাবে পুর্নবাসন করেছে জেনারেল জিয়া, যার ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখেছিল বেগম খালেদা জিয়া।

তিনি ১৪ ডিসেম্বর বেলা ১১টায় মহেশখালীর আদিনাথ সংলগ্ন বধ্যভূমিতে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনকালে এ কথা বলেন।

এ সময় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদনকালে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ জামিরুল ইসলা ও মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রভাষ চন্দ্র ধর। উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদনকালে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্ঠা ডাঃ নুরুল আমিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্রজ গোপাল, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ছালেহ আহমদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধক্ষ্য মোশারফ হোসেন খোকন, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহবুবুল আলম, উপপ্রচার সম্পাদক এহচানুল করিম, ছোট মহেশখালী আওয়ামী লীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম সিকদার, সাধারণ সম্পাদক এনামুল করিম, কুতুবজুম আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবি আলম, শ্রমিক লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, সাবেক ছাত্রনেতা আবদুল হাকিম, রিয়ান সিকদার, ছাত্রনেতা শাহনেওয়াজ শানু, আওয়ামী লীগের নুর মোহাম্মদ বাদশা, যুবলীগের নজরুল ইসলাম ও শাহেল মোঃ আশেক।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •