সোয়েব সাঈদ ,রামু :

রামু উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের রামপাড়া এলাকায় বসত বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় ৪ জন আহত হয়েছেন। এরমধ্যে ছুরিকাঘাতের শিকার যুবক উত্তম দে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে লড়ছে। উত্তম দে ওই এলাকার হারাধন কান্তি ধরের ছেলে। গত মঙ্গলবার সকাল ৮টায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলায় আহত অপর ৩জন হলেন, হারাধন কান্তি দে’র ছেলে টিটু কান্তি দে, উত্তম দে’র স্ত্রী সবিতা দে ও মৃত লবা কান্তি দে’র স্ত্রী মীরা বালা দে। এদের মধ্যে টিটু কান্তি দেকে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং অপর ২ জনকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে।

হামলায় আহতরা জানান, ওই এলাকার তপন ধরের ছেলে রাজিব ধর ও প্রণব ধর, মৃত রমনী ধরের ছেলে তপন ধর এবং মিনু কান্তি দে’র নেতৃত্বে একদল ভাড়াটে লোকজন রাম দা, ছুরি, লাটি-সোটা নিয়ে গত মঙ্গলবার সকাল আটটায় তাদের বাড়ির আঙ্গিনায় প্রবেশ করে তাদের উপর পরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালায়। হামলাকারিরা উত্তম দে’র পেটে ছুরিকাঘাত করলে সে গুরুতর আহত হয়। এসময় তাকে বাঁচাতে আসা ছোট ভাই টিটু, স্ত্রী সবিতা দে, মীরা বালা দে দা দিয়ে কুপিয়ে ও লাটি-সোটা দিয়ে মারধর করে।

তাঁরা আরো জানান, আগেরদিন সোমবার সকাল আটটায় উল্লেখিত হামলাকারিরা টিটু কান্তি দে কে রাম দা দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপ দেয়। এতে টিটু কান্তি তে গুরুতর আহত হন। এ ঘটনার রেশ না কাটতেই পরদিন মঙ্গলবার সকালে ফের রক্তক্ষয়ী হামলার ঘটনায় এলাকায় জনমনে চরম ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

আহত টিটু কান্তি দে জানান, এ ঘটনায় তারা বুধবার রামু থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। এলাকাবাসী অবিলম্বে এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের জোর দাবি জানিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •