গত ১২ ডিসেম্বর দৈনিক হিমছড়ি ও দৈনিক ইনানী পত্রিকা, ১৩ ডিসেম্বর দৈনিক আপন কন্ঠ পত্রিকা ও বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত “পেকুয়ায় রাস্তা কেটে ফসলি জমি তৈরী, ছয় গ্রামের মানুষ বিপাকে” শীর্ষক সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদটির একাংশের প্রতিবাদ জানাচ্ছি। প্রকৃত কথা হল: আসলে সড়কটি নির্মিত হয়েছে অর্ধশত বছর আগে। কিছু মাটি কাটা হয়েছে পানের বরজের জন্য। এ বিষয়ে রক্তপাতের কোন আশংকা নেই। রাস্তার বিষয় নিয়ে এলাকার জনগন অবরুদ্ধ হওয়াটা মিথ্যাচার ছাড়া আর কিছুই নই। রাস্তার সমস্যা নিয়ে ১৩ ডিসেম্বর (শুক্রবার) জুমার নামাজের পর এলাকার মেম্বার আহমদ ছবি, নেজাম উদ্দিন সর্দার, আজগর আলী, মফিজ, শফিউল আলম সওদাগর ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ পাড়ার শতাধিক লোকজন জারুলবুনিয়া কেন্দ্রীয় মসজিদ সংলগ্ন মেম্বারের অফিসে এ জরুরী বৈঠক করেন। তারা বৈঠকে নতুন রাস্তা বাদ দিয়ে পূর্বের রাস্তা বহাল রাখার জন্য সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নেন। সমাজ সর্দার নেজাম উদ্দিন ওই সিদ্ধান্তের কথা সাংবাদিকদের জানান। প্রয়োজনে জায়গার মালিক পক্ষ থেকে রাস্তা বড় করে দেওয়ার জন্য আশ্বাস প্রদান করেন। জায়গার মালিক আহমদ হোছনের ছেলে মামুন সাংবাদিকদের জানায়, বৈঠকে যেটা সিদ্ধান্ত হয়েছে সে অনুযায়ী হবে। আমরা এলাকায় বসবাস করছি সমাজের লোকজন সকলকে নিয়ে। সমাজের লোকজনের সাথে মিলেমিশে এক সাথে থাকেতে চাই। রাস্তা নিয়ে পাড়ার লোকজনের মধ্যে বিভেদ ও কোন্দল সৃষ্টি হওয়া আমরা চাই না। এ ব্যাপারে প্রশাসন কিংবা এলাকাবাসীকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ করছি। আমি উক্ত সংবাদের প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

প্রতিবাদকারী
আহমদ হোসেন
পিতা: কবির আহমদ

ঠিকানা: জারুলবুনিয়া দক্ষিনজুম, শিলখালী, পেকুয়া, কক্সবাজার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •